কলপন

জ্যাকসন

মূল : কৃষণ চন্দর

অনুবাদ: জাফর আলম

  ...»

একমাত্র আমেরিকাই পারে পৃথিবীতে চিরশান্তি আনতে!

জগাই লাল সরকার

বড়সড় একটি বোমা;
চার টন ওজন নিয়ে
হেলেদুলে নেমে এল শহরের বুকে!
টুপ করে পড়ল।
চুপ করে বিশ্রাম নিল মিনিটখানেক।
তারপর
ফেটে পড়ল তীব্র আক্রোশে
কিংবা উল্লাসে।
সূর্যের সাথে তার আজ বাজী -
কে বেশি উত্তাপ ছড়াতে পারে এই শীতল ধরণীর বুকে!
হুংকার করে নাচতে থাকে বোমার আগুন
পুড়তে থাকে যত পাপী আছে এই শহরে।

গতরাতে জন্মালো যে শিশুটি
সে-ও জেনে গেল,
পৃথিবীর মানুষ এখনও সভ্য হয়ে ওঠেনি ততোটা!
বিদায় নিল ৯০ বছর ধরে সভ্যতার গর্বে
গর্বিত বৃদ্ধটিও; বুড়ো বিশ্বাস করত যুদ্ধে তারাই জিতবে শেষ-তক। ...»

মেঘ রহস্য বালিকা

তীর্থক আহসান রুবেল

শেষ দৃশ্য ...»

মোহনা

মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী ...»

মিশ্রিত ঘ্রাণ

আহমদ ময়েজ

কবি তাবাসসুম ফেরদৌস
আঁচলে বেঁধেছ সখি জল ও মায়ার  রঙ
উনুনে রেখেছ কিছু কর্পুর-ঘ্রাণ
তন্ময় রাখিবো কোথায়, কোন পরবাসে
হাঙর-সময় খায় সব আয়োজন

১.
আমি তো জিইয়ে থাকি-সাতরঙা-সূতানলী
যতই জিজ্ঞেস করো কী করে আহার হয়,
কুসুম-কুসুম এই পারদছানা
ততই পেঁচিয়ে ধরে আঁঠালো বাঁধন এক
আমি তারে দাগ দেই-ছোপ ছোপ রক্তের ছাপ।

একেকটি আসন শেষে
পটগুলো বদলে যায় দ্রুতঃ
আমিও দেখতে পাই কতটা রমণী সে,
কতটা পুরুষ। নারীরূপে প্রকাশিত-
লিলির বাগান।

২.
এ-ছিল হাওয়ার রাত
ফেনায়িত জলরাশি-জলের শরীর
শূন্য শূন্য উড়ে যায়। ...»

দীর্ঘনিঃশ্বাস

সৈয়দ রুম্মান

১.
এক টুকরো ভোর চেয়ে গিয়েছি অচিন গাঁয়ে তুচ্ছ করে শিকড়ের ঢেউ
আরো গেছি চিরচেনা পাশের গলিতে হেঁটে হেঁটে

মজ্জায়-মগজে পীড়া, উদরের দাহকলা ভুল পড়ে গেছে;
প্রশ্ন করি দিন বদলের চাকা কোন স্ট্রীটে থাকে…
আগুনে পুড়াই চোখ, মুখে জাগে বিবমিষা-
প্রতীক্ষার আজো কোনো ইয়াত্তা দেখি না।

রিক্ততা ফিরায়ে দিয়ে অসহায়ে বাঁধিয়েছে ধূলোর উঠোন...
তবুও চলেছি বেয়ে এক ফালি চাঁদের কিরণে

২.
যে সুর বাজেনি প্রাণে সেই সুর বাজে কোনখানে
মর্ত্যের আধারে থেকে সাঁকো রচে আনাদি-আনন্তে
ছোট ছোট ছিঁটে পড়ে তার দেখা সাক্ষ্য হয় নিশীথ-উঠোনে... ...»

ঘর্মাক্ত মুখাবয়বের পিছনে

হারিসুল হক

রড্রিক্স, বেদনার শেষ প্রান্তেও কাশফুল দুলতে দেখলাম।
দেখলাম প্রচ্ছন্ন মমতার ভেতর নষ্ট অনুভূতির
সে কী উদ্দাম নাচ। আমার পুঞ্জিভূত ক্ষোভগুলো
দাঁতালো কচ্ছপের মতো মাটি কামড়ে পড়ে রইলো
চেতনা বুঝি অবিমিশ্র অন্ধকারেরই স্তম্ভিত রূপ
- যার প্রকাশ ও বিকাশ দুটোই বহুমাত্রিক
- দৃষ্টি ঢেকে দেয়
হায়, পাওয়া না পাওয়ার সূক্ষ্ম মুক্তোগুলো কত না উজ্জ্বল!
মানুষের আঙুলগুলো বরাবরই চঞ্চল।
আমি জানতাম - ঘর্মাক্ত মুখাবয়বের পেছনে লুকিয়ে থাকে
এক ধরণের ক্লেদাক্ত বাসনা
অরণ্যের অস্থির আঁধারে নিয়ত হারাতে থাকে ...»

Syndicate content