• পদার্থের মত রসায়নেও নোবেল পেলেন তিনজন
    চিত্রা পাল

    স্টকহৌম থেকে চিত্রা পাল

    বুধবার সুইডিশ সময় বেলা পৌনে বারটার দিকে আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষনা করা হয়েছে ২০০৯ সালে রসায়ন শাস্ত্রে নোবেল বিজয়ীদের নাম। এরা হলেন যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল'স মলিকিউলার বায়োলজী ল্যাবরেটোরীজের ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অধ্যাপক ভেঙ্কটারমন রামাকৃষ্ণান (৫৭), যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের টমাস স্টেইয (৬৯) ও ইসরায়েলের ওয়েইজমান ইন্সটিটিউট অফ রিহোভটের আডা ইয়োনাথ (৭০)।

    পুরষ্কার প্রদানকারী সংস্থা রয়্যাল সুইডিশ একাডেমী অফ সায়েন্সেস জানিয়েছে প্রানী-কোষের প্রোটিন ফ্যাক্টরী হিসাবে চিহ্নিত রিবোসাম এর গঠন ও কার্যবলীর উপরে গবেষণা-কর্ম পরিচালনার জন্য উপরোক্ত তিনজনকে ২০০৯ সালের রসায়ন শাখার নোবেলে ভূষিত করা হচ্ছে। উল্লেখিত গবেষণাটিতে এঁদের উদ্ভাবিত ব্যবহারিক ও কৌশলগত পদ্ধতির নাম দেয়া হয়েছে এক্স-রে কৃষ্টালোগ্রাফী। নোবেলে ভূষিত তিন বিজ্ঞানী থার্ড ডাইমেনশাল মডেল তৈরীর মাধ্যমে এন্টিবায়োটিক কিভাবে রিবোসামের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকে তা দেখাতে সক্ষম হয়েছেন। এঁদের গবেষণার মূল উদ্দেশ্য ছিলো বহু-স্তর বিশিষ্ট রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যাকটেরিয়াগুলোর জটিলতার স্বরুপ খুঁজে পাওয়া। উল্লেখ্য, এই তিন বিজ্ঞানীর উদ্ভাবন অবলম্বন করে এখন বিভিন্ন স্থানে রোগীদের উপরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো সম্ভব হচ্ছে।

    রয়্যাল সৌসাইটি অফ কেমিস্ট্রি এর প্রেসিডেন্ট ডেইভিড গার্নার, পুরষ্কার-প্রাপ্ত তিনজনকে 'মহান বিজ্ঞানী' হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি আরও জানান এঁরা যে-ধরণের গবেষণা করছেন তার গুরুত্ব অপরিসীম।

    স্টকহৌম থেকে চিত্রা পাল
    ০৮ অক্টৌবর ২০০৯

     

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন