• ইউক্রেনে সরকার-বিরোধীদের বিরুদ্ধে সেনা-অভিযান শুরুঃ যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন, রাশিয়ার নিন্দা
    ukraine_govt_ops_against_separatists.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১৫ এপ্রিল ২০১৪, মঙ্গলবারঃ ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে সরকার-বিরোধী বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে সেনা-অভিযান শুরু করেছে কিয়েভের অন্তর্বর্তীকালীন সরকার। যুক্তরাষ্ট্র এ-পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, উস্কানির জবাবে ইউক্রেনকে পদক্ষেপ নিতে হয়েছে। অন্যদিকে প্রতিবেশী রাশিয়া একে অসাংবিধানিক কাণ্ড বলে সমালোচনা করেছে। খবর জানিয়েছে রয়টার্স, বিবিসি, এসৌসিয়েটেড প্রেস, ইতার তাশ ও রাশিয়া টুডে।

    সম্প্রতি ভেঙ্গে দেওয়া ইউক্রেইনীয় দাঙ্গা পুলিসের একটি দল সরকার-বিরোধীদের সাথে যোগ দেয়। এছাড়া স্থানীয়ভাবেও 'আত্মরক্ষা-বাহিনী' নাম দিয়ে একটি সশস্ত্র সংগঠনও গড়ে উঠেছে, যাকে দেশটির সরকার রাশিয়ার উস্কানির ফল বলে বর্ণনা করছে। তবে, ইউক্রেনের অভ্যন্তরে কোনো ধরণের উস্কানিমূলক কার্যক্রম পরিচালনার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে রাশিয়া।

    গত কয়েকদিন ধরে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের বিরোধীরা পূর্ব ইউক্রেনের অন্ততঃ দশটি শহরের প্রশাসনিক ভবন, পুলিস ভবন, বিমানবন্দর ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। রোববার এ-নিয়ে সংঘর্ষে অন্ততঃ একজন পুলিস সদস্য নিহত হওয়ার পর সরকার সোমবার সকালের মধ্যে দখলিত সকল ভবন ত্যাগ করতে নির্দেশ দেয় বিক্ষোভকারীদের। তবে সে-আল্টিমেটাম উপেক্ষা করে সশস্ত্র বিক্ষোভকারীরা তাদের অবস্থান চালিয়ে যায়।

    আল্টিমেটাম পেরিয়ে যাওয়ার একদিন পর আজ ট্যাঙ্ক, যুদ্ধবিমান, হেলিকপ্টার, সাজোয়া যানে সজ্জিত হয়ে আনুমানিক কয়েকশো সেনা ক্রমাতর্স্ক, স্লাভিয়ান্সক-সহ পূর্বাঞ্চলীয় কয়েকটি শহরে একযোগে অভিযান শুরু করেছে। নিয়মিত বাহিনীর পাশাপাশি এতে অংশ নেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধিনস্থ বিশেষ বাহিনী ও সাধারণ নিরাপত্তা রক্ষী বাহিনী। বিবিসি জানিয়েছে, ক্রমাতর্স্ক পৌঁছানোর পর সাধারণ নাগরিকদের রোষের শিকার হয় সৈন্যরা - যারা ক্ষুব্ধভাবে গণভৌটের দাবি জানায়।

    দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে আজকের এ-অভিযানের মাধ্যমে সরকারী বাহিনী ক্রামাতর্স্ক বিমানবন্দর তাদের দখলে নিতে সক্ষম হয়েছে। সরকার-বিরোধীদেরকে 'সন্ত্রাসী' আখ্যা দিয়ে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেণ্ট ওলেক্সন্দর তুর্চিনভ পার্লামেণ্টে বলেছেন, "দোনেতস্ক ও অন্যান্য অঞ্চলে শীঘ্রই আর কোনো সন্ত্রাসী অবশিষ্ট থাকবে না এবং তাদের স্থান হবে (আদালতের) কাঠগড়ায়।" সরকার-বিরোধীরা দাবি করেছে, বিশেষ বাহিনীর নামে মূলতঃ উগ্র ডানপন্থী 'রাইট সেক্টর'-এর মিলিশিয়ারা অংশ নিয়েছে বিমানবন্দর আক্রমণে - জানিয়েছে ইতার তাশ।

    তবে ক্রামাতর্স্ক শহরের 'আত্মরক্ষা বাহিনী'র নাম-অপ্রকাশিত একজন মুখপাত্র সংবাদ মাধ্যমের কাছে দাবি করেছেন, বিমানবন্দর থেকে বিতাড়িত হলেও মূল শহর এখনও তাঁদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। স্থানীয় মানবাধিকার কর্মীদের বরাত দিয়ে ইতার তাশ জানিয়েছে, বিমানবন্দরে সেনা আক্রমনে কয়েকজন সরকার-বিরোধী নিহত হয়েছে।

    রুশ প্রেসিডেণ্ট ভ্লাদিমির পুতিন আজ টেলিফৌনে জাতিসঙ্গের প্রধান বান কি মুনকে আহবান জানিয়েছেন, ইউক্রেনের নাগরিকদের উপর সরকারী সেনা-হামলার নিন্দা জানাতে। জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাঙ্গেলা মার্কেলের সাথেও কথা বলেন পুতিন। সরকারের সেনা-অভিযানের মাধ্যমে ইউক্রেন একটি গৃহযুদ্ধের প্রান্তে এসে পৌঁছেছে বলে মার্কেলকে সতর্ক করে দেন পুতিন।

    উল্লেখ্য, ইউক্রেনের সঙ্কট নিরসনের লক্ষ্যে আগামী ১৭ তারিখ ইউক্রেন, রাশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে চতুর্পাক্ষিক আলোচনার কথা রয়েছে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন