• ইউরো ত্যাগের সম্ভবনা গ্রীসেরঃ আপদ-কালীন পরিকল্পনা করছে ইইউ কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক
    greece_interim_pm_german_markel_in_brussels.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৩ মে ২০১২, বুধবারঃ  ঋণ-সঙ্কটে জর্জরিত গ্রীস অভিন্ন ইউরো মুদ্রা পরিত্যাগ করলে করণীয় কী, তা ঠিক করতে আজ বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেল্‌সে এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে মিলিত হয়েছেন ইউরোপের নেতারা। এ-সংবাদে শঙ্কিত ইউরোপীয় ও মার্কিন শেয়ার ও মুদ্রা-বাজারে দরপতন ঘটেছে। তবে গ্রীসের অন্তর্বর্তীকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার এ-বৈঠককে ভিন্নভাবে চিত্রিত করেছে। এ-ধরণের সংবাদকে 'মিথ্যা' উল্লেখ করে তারা দাবী করেছে যে, এটি 'গ্রীস চলে গেলে কী হবে' - তার সাথে সম্পর্কিত নয়।

    ব্রাসেল্‌সের বৈঠকের খবর প্রচারিত হওয়ার স্বল্প সময়ের মধ্যে লণ্ডন শেয়ার বাজারের ফুটসি-১০০ সূচক ২.৫৩% কমে গিয়েছে। ফ্রান্স ও জার্মানীর বাজারের পতনের হার যথাক্রমে ২.৬% ও ২.৩%। ঋণ সঙ্কটে বেকায়দায় পড়া ইউরোপের অন্য দেশ ইতালী ও স্পেইনের বাজারের সূচক-মানের হ্রাস পেয়েছে আরও বেশি - যথাক্রমে ৩.৭% ও ৩.৩%। অন্যদিকে আটলান্টিকের ওপারে, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালস্ট্রীটের ডাও জৌন্‌স সূচক কমেছে ১.৩%।

    গ্রীসের প্রধান দুই রাজনৈতিক শিবির সৌশ্যাল ডেমৌক্র্যাট ও কনসার্ভেটিভ সাধারণ জনগণের দুর্দশার কথা বিবেচনায় না নিয়ে কঠোর রাষ্ট্রীয় ব্যয় সঙ্কোচন ও বেসরকারীকরণের শর্তে ইইউ ও আইএমএফের কাছ থেকে বেইল-আউটের নামে আরও ঋণ নেয়ার পক্ষে মত দেয়। তার বিপরীতে তুলনামূলকভাবে দূর্বলতর সাংগঠনিক শক্তি নিয়ে দূর-বামপন্থী জোট সিরিজা এ-বেইল-আউটের বিরোধিতা করে ৬ই মে'র নির্বাচনে অংশ নিয়ে আশাতীত সাফল্য পায়।

    কিন্তু কোনো দলই প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় ও পরে অংশীদারীত্বের সরকার গঠনে ব্যর্থ হওয়ায় গ্রীক সংবিধান অনুযায়ী পুনঃনির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেয় দেশটি, যা আগামী ১৭ই জুন অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এবার সিরিজা জোট - যারা প্রকাশ্যে 'অকল্যাণকর ঐ বেইল-আউটের শর্ত-পত্র ছিড়ে ফেলার অঙ্গিকার' করেছে - এককভাবেই প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে।

    দ্বিতীয় দফা নির্বাচনের মুখে পশ্চিমা উদারনৈতিক শক্তিধর দেশ ও সংস্থাগুলো বাম-জোট সিরিজার বিরুদ্ধে কৌশলগত কার্যক্রম শুরু করেছে। জার্মানীর কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক আজ সন্ধ্যায় গ্রীসকে অর্থনৈতিক সহায়তা প্রদান সাময়িকভাবে বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছে। জার্মান পত্রিকা হাণ্ডেল্‌শ্‌ব্লাট এ-ঘটনাকে 'জার্মানী গ্রীসের মাথায় বন্দুক ঠেকিয়েছে' বলে আখ্যায়িত করেছে। উল্লেখ্যঃ দু-সপ্তাহ আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন গ্রীসের ১ বিলিয়ন ইউরোর পূর্ব-নির্ধারিত বেইল-আউট কিস্তির অর্থ আটকে দিয়েছে।

    তবে চাপ প্রয়োগের পাশাপাশি দর-কষাকষিও চলছে। বিদেশী ঋণ-দাতারা বেইল-আউটের শর্ত শিথিল করার ব্যাপারে কথা বলতে প্রস্তুত রয়েছেন বলে ইঙ্গিত করেছেন আইএমএফের প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্দ। আইএমএফ মনে করছে, এতে বেইল-আউটের পক্ষে অবস্থান নেয়া প্রধান দুই দলের জন্য আগামী নির্বাচনে লড়াই করা সুবিধাজনক হবে। দৃশ্যতঃ সিরিজা-জোটের হাতে গ্রীসের ক্ষমতা যেন না যায়, সে-চেষ্টাই করছে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন