• ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর উপর আক্রমণ সাবেক গোয়েন্দা প্রধানের
    YuvalDiskin.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ৩০ এপ্রিল ২০১২, সোমবারঃ ইসরায়েলের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা গোয়েন্দা বিভাগ ‘শিন বেত’-এর প্রাক্তন প্রধান ইউভাল দিসকিন গত শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী এহুদ বারাকের ইরান-আক্রমণের পরিকল্পনার তীব্র সমালোচনা করে বলেন যে, ইরান-প্রশ্নে তাঁরা ইসরায়লের জনগণকে বিপথে পরিচালিত করছেন। তিনি দাবি করেন, ইসরায়লের নেতৃত্ব দেবার মতো যোগ্যতা নেতানিয়াহু ও বারকের নেই। তবে সরকার-পক্ষ তাঁর সমালোচনাকে প্রত্যাশিত পদ অপ্রাপ্তি জনিত হতাশার ফল বলে মন্তব্য করেছেন।

    গত শুক্রবার রাতে কাফ্‌র নগরীর এক দল অধিবাসীর সাথে এক বৈঠক-কালে সাবেক এই গোয়েন্দা-প্রধান বলেন, অগ্রীম আক্রমণ করলে ইরান পারমাণবিক বোমা তৈরী থেকে বিরত থাকবে বলে ইসরায়েলের বর্তমান নেতৃত্ব যে দাবি করছেন, তাতে তাঁরা জাতিকে বিপথে পরিচালিত করছেন।

    দিসকিন বলেন, ‘ইরান ইস্যুতে তাঁরা জনগণকে বিপথে চালিত করছেন। তাঁরা জনগণকে বলেন, যদি ইসরায়েল পদক্ষেপ নেয়, তাহলে ইরান পারমাণবিক বোমা বানাবে না। এটি বিভ্রান্তিমূলক। প্রকৃত প্রস্তাবে, অনেক বিশেষজ্ঞ বলেছেন যে, ইসরায়েলী আক্রমণের ফলে ইরানের পারমাণবিক প্রচেষ্টা আরও দ্রুততর হবে।’

    উল্লেখ্য, গত মার্চে ইসরায়লের আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা বিভাগ মোসাদের প্রাক্তন প্রধান মিয়ার দ্যাগান ইরান আক্রমণের ধারণার বিরুদ্ধে জন সম্মুখে বিরোধিতা করে বলেছিলনে, এমন আক্রমণ হলে তা ইসরায়েলের জন্য বিধ্বসী পরিণতি বয়ে আনবে এবং কোনো পরিস্থিতিতেই ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির বন্ধ করার সম্ভাবনাও এর নেই। প্রাক্তন মোসাদ প্রধান ইরানের উপর ইসরায়েলী হামলাকে ‘মৌস্ট স্টুপিড’ বা ‘সর্বাধিক নির্বোধ’-এর কাজ হবে বলে মন্তব্য করেছিলেন।

    দৃশ্যতঃ একই ধারণার প্রতিফলন ঘটিয়ে সর্বশেষ দিসকিন বলেন, ‘আমার প্রধান সমস্যা হচ্ছে এই যে, বর্তমান নেতৃত্বের উপর আমার বিশ্বাস নেই যে, তাঁরা ইরানের সাথে কিংবা যে কোনো আঞ্চলিক যুদ্ধে নেতৃত্ব দিতে পারবেন।’

    তিনি উল্লেখিত দুই নেতাকে ‘ম্যাসিয়ানিক’ বা ‘পয়গম্বরিক’ বলে বর্ণনা করে বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রী কিংবা প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে বিশ্বাস করি না। আমি এমন নেতৃত্বে বিশ্বাস করি না, যারা মেসিয়ানিক বা পয়গম্বরী অনুভূতির ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।’

    তিনি বলেন, ‘বিশ্বাস করুন, আমি তাঁদেরকে খুব কাছ থেকে দেখেছি। এঁরা এমন মানুষ নন, যাঁদেরকে আমি ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিশ্বাস করতে পারি যে, ঐ পর্যায়ে (যুদ্ধের) ইসরায়েলকে নেতৃত্ব ও পরিচালিত করতে পারবেন। এ-রকম ঘটনায় চালকে চাকা ধারণ করার মতো লোক তাঁরা নন।’

    এদিকে শুক্রবার সমালোচনার মুখে প্রধানমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সহযোগীরা অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা বিভাগের এই সাবেক প্রধান সম্পর্কে বলেন যে, তিন মূলতঃ ইসরায়লের আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের প্রধান হতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তাঁকে ঐ-পদে না দেয়াতেই তিনি হতাশার বশে এসব কথা বলছেন।

    এদিকে, বিরোধী দলের পক্ষে থেকে বলা হচ্ছে দিসকিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সত্য কথা বলেছেন।  ইসরায়েলের সংবাদপত্রে প্রকাশিত এক লেখায় বলা হয়, দিসকিন হচ্ছেন পরিচিত সেই গল্পের বালক, যে সবার নীরবতার মধ্যে সত্য উচ্চারণ করে বলেছিল, ‘সম্রাটের শরীরে কোনো কাপড় নেই - ন্যাংটা!’

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন