• কফি আনানের সিরিয়া মিশনঃ আলোচনা ব্যর্থ হওয়া সত্ত্বেও আশাবাদী
    Anna-and-Assad.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১১ মার্চ ২০১২, রোববারঃ  সিরিয়াতে দু-দিনের সফর শেষে জাতিসংঘের প্রাক্তন মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বাধীন বিশেষ কূটনৈতিক মিশন আজ ফিরে গেলো সরকার ও বিরোধী পক্ষের মধ্যে কোনো মতৈক্য প্রতিষ্ঠা করা ছাড়াই, তবে উপসংহারে তিনি বিষয়টির জটিলতা স্বীকার করেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

    কফি আনান গত দু-দিনে একাধিক বার প্রেসিডেন্ট আসাদ এবং তাঁর বিরোধী পক্ষের সাথে আলোচনা করেন। তাঁর সাথে আলোচনায় বিরোধী নেতা হাসান আব্দুলাজিন জাতিসঙ্ঘকে সঙ্কট সমাধান কল্পে চেষ্টার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘বর্তমান অবস্থা থেকে পরিবর্তনের অন্তর্বর্তী পর্যায় নির্ণয়ের জন্য দরদস্তুর করার আগে উচিত হচ্ছে সহিংসতা বন্ধ, বন্দী মুক্তি ও উপযুক্ত পরিবেশের গ্রতিষ্ঠা।’

    অপরদিকে, গতকাল কফি আনানের সাথে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রেসিডেন্ট আসাদ বলেন, ‘দৃশ্যমান ঘটনা-সমূহের সমাধান পেতে যে-কোনো সৎ প্রচেষ্টাকে সফল করা জন্য সিরিয়া তৈরী রয়েছে, কিন্তু ‘যতোক্ষণ দেশের ভিতরে সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদী দলগুলো তাদের তৎপরতা চালাচ্ছে এবং স্থিতিহীনতা ও নৈরাজ্য ছড়াচ্ছে, ততোক্ষণ যাবৎ রাজনৈতিক সংলাপ বা রাজনৈতিক তৎপরতা সফলকাম হবে না।’

    এদিকে, প্রেসিডেন্ট আসাদ ও বিদ্রোহীদের মধ্যে সংলাপ ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে গতকাল রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লেভরভ মিশরে আরব লীগের সাথে বৈঠকে মিলিত হয়ে ৫ দফার একটি পরিকল্পনা প্রস্তাব করেন।

    প্রস্তাবে লেভরভ বলেন, ‘প্রথমতঃ যার পক্ষ থেকে আসুক না কেনো, সহিংসতা বন্ধ করতে হবে। দ্বিতীয়তঃ নিরপেক্ষ ও স্বাধীন পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা তৈরী করতে হবে। তৃতীয়তঃ বাইরের কোনো হস্তক্ষেপ চলবে না। চতুর্থতঃ সকল সিরিয়াবাসীর জন্য মানবিক সাহায্য সরবরাহকে বাধাহীন করতে হবে। পঞ্চমতঃ সরকার ও সকল বিরোধী গ্রুপের মধ্য রাজনৈতিক সংলাপ শুরুর  উদ্দেশ্য কফি আনানের মিশনকে করতে হবে।’

    আজ পুনরায় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের সাথে আলোচনার পর সিরিয়া ত্যাগের আগে কফি আনান তাঁর চেষ্টিত মধ্যস্থতা সম্পর্কে বলেন, ‘এটি কঠিন হবে কিন্তু আমাদের আশা রাখতে হবে।’ তিনি ‘আশাবাদী হবার জন্য বিভিন্ন কারণ’ রয়েছে বলে দাবী করেন।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন