• ক্যু-পরবর্তী প্রথম বিদেশ সফরে রাশিয়ায় এর্দোয়ানঃ স্বাগত জানিয়েছে জার্মানী
    putin-erdogan_meet_03.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - লণ্ডন, ৯ অগাষ্ট ২০১৬, মঙ্গলবারঃ রাশিয়ার সেইণ্ট পিটার্সবার্গে আজ প্রেসিডেণ্ট পুতিনের সাথে সাক্ষাত করেছেন তুরষ্কের প্রেসিডেণ্ট রিজেপ তায়িপ এর্দোয়ান। গত মাসে ব্যর্থ ক্যু সংঘটিত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কের ক্রমাবনতির মধ্যে এই প্রথম বিদেশ সফরে গিয়েছেন তুর্কী প্রেসিডেণ্ট।

    গত নভেম্বরে ন্যাটো সদস্য তুরষ্ক একটি রুশ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার মধ্য দিয়ে উভয় দেশের সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু হয়। জবাবে রাশিয়া বাণিজ্য অবরোধ আরোপ করে তুরষ্কের উপরে, যার ফলে দেশটিতে রুশ পর্যটকের সংখ্যা ৮৭% কমে যায়। কিন্তু ব্রিটেইন ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগের পক্ষে গণভৌটে রায় দেয়ার স্বল্পসময় পরেই জোটটির সদস্য হতে আগ্রহী তুরষ্ক রাশিয়ার সাথে সম্পর্কোন্নয়নে মনোযোগী হয়। জুন মাসেই প্রেসিডেণ্ট পুতিনের কাছে চিঠি পাঠিয়ে বিমান ভূপাতিত করার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন এর্দোয়ান।

    আজ প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে পুতিন ও এর্দোয়ানের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। সভা শেষে এর্দোয়ান 'নতুন সম্পর্কের' প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পুতিনকে 'প্রিয় বন্ধু' বলে সম্বোধন করে এর্দোয়ান বলেন, "ক্যু ঘটার পর-পরই আপনার টেলিফৌন কল আমার জন্য, আমাদের নেতৃত্ব ও জনগণের জন্য খুবই সুখের বিষয় ছিলো"।

    জবাবে পুতিন বলেন, "এটি আমাদের নৈতিক অবস্থান। আমরা সকল ধরণের সংবিধান বিরোধী কর্মকাণ্ড-প্রচেষ্টার বিপক্ষে"। সাথে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, এর্দোয়ানের নেতৃত্বে "তুরষ্কে ন্যায়বিচার ও আইনী বৈধতা সংরক্ষিত হবে"। গত মাসে ক্যু ব্যর্থ হওয়ার পর থেকে দেশটিতে অদৃষ্টপূর্ব বিরোধী-দমন চলছে। এ-পর্যন্ত প্রায় এক লক্ষ সন্দেহিত ক্যু-সমর্থককে গ্রেফতার অথবা চাকুরী থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর্দোয়ান ঘোষণা দিয়েছেন তিনি মৃত্যুদণ্ডের বিধান পুনর্বহাল করবেন, যা ১৯৮৪ সালে রদ করা হয়।

    এমন পরিস্থিতিতে তুরষ্কের ইইউ'র সদস্যপদ প্রাপ্তির ব্যাপারে অনিশ্চয়তা ক্রমাগত বাড়ছে। অষ্ট্রিয়ার বিদেশমন্ত্রী ইতিমধ্যেই বলেছে, তুরষ্ককে ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রবেশে ভেটো দেবে তাঁর দেশ। মধ্যে আজ পুতিন-এর্দোয়ান সাক্ষাতকারকে কেন্দ্র করে ব্রাসেল্‌সে তাই মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে।

    তবে জার্মানী স্বাগত জানিয়েছে রুশ-তুর্কি সম্পর্কোন্নয়নের পদক্ষেপকে। দেশটির বিদেশমন্ত্রী ফ্র্যাঙ্ক-ওয়াল্টার ষ্টেইনমেয়ার ডেইলি বিল্ড পত্রিকাকে বলেছেন, "এটা ভালো ব্যাপার যে গত বছর তুরষ্কের হাতে রুশ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত হওয়ার পর এখন সম্পর্ক পুনঃস্থাপিত হচ্ছে"। তুরষ্ক ন্যাটোকে রেখে প্রতিদ্বন্দী রাশিয়ার দিকে ঝুঁকছে এমন আশঙ্কা নাকচ করে দিয়ে তিনি বলেন, "আমার বিশ্বাস দু'দেশের সম্পর্ক এতোটা ঘনিষ্ঠ হবে না যাতে রাশিয়া ন্যাটোর বিকল্প নিরাপত্তা-অংশীদারিত্ব দিতে পারে"।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন