• গণভৌটের রায়ে ইইউ ছাড়ছে যুক্তরাজ্যঃ প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ, দ্রুত বিদায় নিতে ইউরোপের তাগাদা
    brexit.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৪ জুন ২০১৬, শুক্রবারঃ ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকা-না-থাকা গণভৌটে প্রায় ৫২শতাংশ ভৌটার ইউরোপ ছাড়ার পক্ষে রায় দিয়েছেন। আজ ভোরে ভৌটের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার ঘণ্টাখানেক পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেইভিড ক্যামেরোন পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। ব্রেক্সিট নিশ্চিত হতে-হতে ইউরোপ ছাড়িয়ে সমগ্র পৃথিবীজুড়ে এর প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে।

    ইউরোপীয় ইউনিয়নের ৬০ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো সার্বভৌম রাষ্ট্র এ-সংস্থা থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে। এ-সংক্রান্ত বিধিট আর্টিকেল ফিফ্‌টি বলে বহুল পরিচিত। এর অধীনে আনুষ্ঠানিকভাবে নিষ্ক্রমন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে দুই বছর সময় প্রয়োজন হবে।

    প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরোন তাঁর 'পদত্যাগ' ভাষণে জানান, আনুষ্ঠানিকভাবে ইইউ থেকে বেরিয়ে আসতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, "আসছে সপ্তা-মাসে আমি জাহাজটা স্থিতিশীল করতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যা-যা সম্ভব করবো, তবে আমাদের দেশটাকে নতুন গন্তব্যে নেওয়ার ক্যাপ্টেন হওয়া আমার জন্য ঠিক হবে না।"

    এদিকে, ব্রেক্সিটের খবরে ইউরোপীয় রাজধানীগুলোতে চাঞ্চল্য পরিলক্ষিত হয়েছে। ইইউতে সবচেয়ে প্রভাবশালী রাষ্ট্র জার্মানির সরকার প্রধান এঙ্গেলা মের্কেল, ব্রেক্সিটকে 'দুঃখজনক' বলে বর্ণনা করে বলেছেন, "নিঃসন্দেহে এটা ইউরোপ ও ইউরোপীয় একত্রীকরণের উপর একটা ধাক্কা"। ফরাসী প্রেসিডেণ্ট ফ্রাঁসোয়া অলাঁদ বলেছেন, "ব্রিটিশ ভৌট ইউরোপের জন্য একটি কঠিন পরীক্ষা"।

    ব্রিটেইনের দ্রুত বিদায় চায় ইউরোপ

    ইউরোপীয় পার্লামেণ্ট, ইউরোপীয় কাউন্সিল, ইউরোপীয় কমিশন ও ওলন্দাজ প্রধানমন্ত্রীর এক যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে ব্রিটেইনের বিদায়কে ত্বরান্বিত করার তাগাদা দিয়েছেন। বিবৃতিতে বলা হয়, "যেকোনো কালক্ষেপণ অনিশ্চয়তাকে অহেতুক দীর্ঘায়িত করবে"। ইউরোপীয় পার্লামেণ্টের প্রেসিডেণ্ট মার্টিন শুল্‌জ বলেছেন ইইউ আইনজ্ঞরা খতিয়ে দেখছেন আর্টিকেল ফিফ্‌টি অর্থাৎ ইইউ থেকে নিষ্ক্রমণের আইন ব্যবহারের প্রক্রিয়ার গতি বাড়ানো যায় কি-না। এই প্রথম ব্যবহৃত হবে বলে এ-বিধির পদ্ধতিগত জটিলতার ব্যাপারে অনিশ্চয়তা রয়েছে।

    অর্থনীতিতে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া

    গতরাতে যখন একে একে কেন্দ্রের ফলাফল প্রকাশিত হচ্ছিলো, তখন থেকেই যুক্তরাজ্যের মুদ্রা পাউণ্ড ষ্টার্লিং এর মূল্যমান কমতে শুরু করে। আজ পূর্ণ ফল প্রকাশের পর এ-মান এতোই কমেছে যা গত ৩১ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

    ভৌটের আগে থেকে অর্থনৈতিক পণ্ডিতে সতর্ক করে আসছিলেন যে 'ব্রেক্সিট' ঘটলে, ব্রিটেইন অর্থনৈতিক ঝুঁকিতে পড়তে পারে। এ-পূর্বাভাস মাথায় রেখে আজ কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের গভর্নর জানিয়েছেন তারা ২৫০ বিলিয়ন পাউণ্ডের  সহায়তা তহবিল দিতে প্রস্তুত।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন