• চীনে ওবামাঃ নেই বিমানত্যাগের বিশেষ সিঁড়ি, দেয়া হয়নি লাল গালিচা
    obama-exit-from-ass-of-air-force-one-in-china.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - লণ্ডন, ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬, রোববারঃ জি২০ সম্মেলন উপক্ষে আজ চীনে পৌঁছেছেন মার্কিন প্রেসিডেণ্ট বারাক ওবামা। তবে বিমানবন্দরে তাঁকে দেয়া হয়নি দেয়া লাল গালিচার সম্বর্ধনা, যা অন্যান্য দেশের নেতারা ঠিকই পেয়েছেন।

    আজ সকালে পূর্ব চীনের হ্যাংঝু বিমানবন্দরে নামার পর রুশ প্রেসিডেণ্ট ভ্লাদিমির পুতিন বা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরিসা ম্যের জন্য লাল গালিচা বিছিয়ে দিয়েছিলো চীন। তবে বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি ও সমরশক্তির দেশের নেতা ওবামার জন্য বিমান থেকে নামার জন্য ছিলো না প্রচলিত 'রৌলিং' সিঁড়ি। মার্কিন প্রেসিডেণ্ট তাই ভূমিতে অবতরণ করেছেন সচরাচর ব্যবহৃত সামনের দরজার বদলে বিমানের পেটের কাছে অবস্থিত নিজস্ব দরজা দিয়ে। ফলে সে-সিঁড়িতে ছিলো না লাল গালিচা।

    বিশ্বের রাজনীতিক-কূটনীতিক মহলে এ-নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে। চীনে নিযুক্ত সাবেক একজন মেক্সিকান রাষ্ট্রদূত জর্জ গৌয়ার্দো এ-ঘটনাকে চীনের 'ইচ্ছাকৃত' কর্ম বলে মন্তব্য করেছেন। ছয় বছর চীনে কাজ করা এ-কূটনীতিক বলেন, "দু'জন মেক্সিকান প্রেসিডেণ্টকে আমি চীনে অভ্যর্থনা জানিয়েছি। আমি জানি ঠিক কীভাবে এ-কাজগুলো করা হয়। এখানে ত্রুটি হয়নি"। তিনি আরও বলেন, "এটা হচ্ছে পাত্তা না দেওয়া। [আমেরিকাকে] একভাবে বলা যে দেখো, তুমি তেমন বিশেষ কেউ নও"।

    তবে অভ্যর্থনা-অনুষ্ঠানের সাথে জড়িত থাকা একজন চৈনিক কর্মকর্তা 'পাত্তা না-দেওয়ার' মন্তব্যকে উড়িয়ে দিয়ে দাবী করেছেন যে, মার্কিন কর্মকর্তাদের ইচ্ছেতেই বিশেষ সিঁড়ি লাগানো হয়নি ওবামার বিমানে। নাম অপ্রকাশিত এ-কর্মকর্তা চীনের সাউথ চায়না মর্নিং পৌষ্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, "প্রত্যেক রাষ্ট্রনেতার জন্যই রৌলিং সিঁড়ি দেয় চীন। কিন্তু মার্কিন পক্ষ অভিযোগ করেছিলো যে [সিঁড়ির চালক] ইংরেজী জানতো না তাই তাদের নিরাপত্তা নির্দেশনা বুঝতে পারছিলো না; তাই চীন প্রস্তাব করেছিলো অনুবাদক দেয়ার। তবে মার্কিন পক্ষ এ-প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে জানিয়েছিলো বিমানবন্দরের দেয়া সিঁড়ির প্রয়োজন তাদের নেই"।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন