• ছায়া-চ্যান্সেলারের পরামর্শ কায়া-চ্যান্সেলারের প্রতিঃ ভিএটি বৃদ্ধি প্রত্যাহার করুন
    Shadow-chancellor-Ed-Ball-007.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি, ১৬ জুন ২০১১, বৃহস্পতিবারঃ  শ্যাডৌ চ্যান্সেলার এড বলস বলেছেন ব্রিটেইনের ‘ফ্ল্যাটেনিং’ (মন্দাগামী) অর্থনীতির ‘জাম্প-স্টার্ট’ (গতিসঞ্চার) করার জন্য চ্যান্সেলার অফ এক্সচেকার জর্জ ঔসবর্নের উচিত ভিএটি’র বৃদ্ধিকরা হার সাময়িকভাবে হলেও প্রত্যাহার করা। বৃহস্পতিবার লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্সে এক বক্তৃতায় তিনি দাবী করেন, ব্রিটেইনের অর্থনীতির গতি অন্যান্য প্রতিযোগী দেশের তুলনায় মন্থরতর।

    ব্রিটেইনের খুচরো-বাণিজ্যে প্রত্যাশিত পরিমাণের চেয়ে দ্বিগুণ - ১.৪% - বিক্রি-পতনের পরিসংখ্যান নিরিখে ছায়া-চ্যান্সেলর কায়া-চ্যান্সেলরকে অর্থনীতির কাঠামিক-ঘাটতি চট-জলদি হ্রাসের লক্ষ্যে ‘দ্রুত ও হঠকারী গতিভঙ্গি’ নিয়ে অর্থনীতিকে বিপদগ্রস্ত করার দায়ে অভিযুক্ত করেন।

    পরামর্শ দিয়ে বলস্‌ বলেন, এখনও সময় আছে ঘাটতি হ্রাসে গতির মন্থর করে অর্থনীতিকে গতিদান করার, আর সেটি হচ্ছে জানুয়ারীতে ঔসবর্ন ভিএটির হার যে ২.৫% বাড়িয়েছিলেন, তাকে সাময়িক ভিত্তিতে প্রত্যাহার করা।

    উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের মধ্যে অর্থনীতির কাঠামিক-ঘাটতি মেটাতে প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে ভ্যালু এ্যাডেড টেক্স বা ভিএটিকে ১৭.৫% থেকে ২০%-এ বৃদ্ধি করেছিলেন চ্যান্সেলার জর্জ ঔসবর্ন।

    ব্রিটেইনের বিখ্যাত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্সে বক্তৃতায় ছায়া চ্যান্সেলার বলেন, ‘জর্জ ঔসবর্নের প্রতি আমার পরামর্শ হলো এই যে, তিনি যখন স্থায়ীভাবে ভিএটি বৃদ্ধির ভুল প্রত্যাহার করবেন না, অর্থনীতি শক্তিশালী হয়ে ওঠার আগে পর্যন্ত অন্ততঃ সাময়িকভাবে তা বাতিল করতে পারেন।’ তিনি বলেন, ‘সাময়িক ভিএটি হ্রাসের মাধ্যেম ঘাটতি হ্রাসের গতিকে মন্থর করলে তা মন্দাগামী অর্থনীতিতে জরুরী-ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় গতিসঞ্চার করবে, চাকুরীর বাজার চাঙ্গা করবে এবং দীর্ঘ মেয়াদের জন্য ঘাটতি হ্রাসের পথ সুগম করবে।’

    খুজরো-বাণিজ্যের ধুসর পরিসংখ্যান প্রকাশোত্তর পরিস্থিতিতে এড বলসের এ-মধ্যবর্তনকে ক্ষিপ্রতার সাথে বৃহস্পতিবারেই সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যাখ্যান করে বলা হয়েছে, ভিএটি বৃদ্ধি প্রত্যাহার করলে বছরে ১২ বিলিয়ন পাউন্ড খসে যাবে। যারা ট্যাক্স-হ্রাস, সরাকারী ব্যয় ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির আহবান করছেন, তাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে ডেইভিড ক্যামেরোন বৃহস্পতিবার লিঙ্কনে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি করলে আপনি যা করবেন, তা হলো আপনার ঘাটতি ও ঋণের সমস্যাকে আরও খারাপ করবেন।’

    জানুয়ারীতে ছায়া চ্যান্সেলর হবার পর প্রথমবারের মতো উচ্চ-মর্যাদার এ-বক্তৃতাতে এড বলস ঘাটতি হ্রাসের উপর সরকারের সাথে একটি বিতর্কের পুনঃঅবয়ব দেবার চেষ্টা করেন। তিনি তার বিপরীত পক্ষ ঔসবর্নকে বিকল্প সন্ধানে চোখ মেলতে অস্বীকার করার অভিযোগ করে বলেন, সরকার নিজেদের ব্যর্থতার দায় লেবার পার্টির গায়ে চাপাবার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, লেবার পার্টিকে দোষারোপ করার মধ্যে দিয়ে বাস্তব সমস্যার কোনো পরিবর্তন হবে না।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন