• জামায়াত নিষিদ্ধির হরতাল সিপিবি-বাসদের ও বাম মোর্চারঃ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিনন্দন
    bd_cpb_bsd_strike.JPG

    ইউকেবেঙ্গলি - ১৮ ডিসেম্বর ২০১২, মঙ্গলবারঃ ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার দাবীতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) আজ সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করেছে। একই দিনে অপর সক্রিয় বাম-জোট বাম-মোর্চাও একই দাবীতে হরতাল ডাকে।

    এ-হরতালে সমর্থন দিয়েছে বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, ঢাকা পরিবহন সমিতি ও বিভিন্ন ট্রেইড ইউনিয়ন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের একজন সদস্য ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগ এনে ২০১০ সালে জামায়াত নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন যার পরিপ্রেক্ষিতেই তাঁদেরকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে মানবতা-বিরোধী অপরাধের অভিযোগে তাঁদের পুনরায় গ্রেফতারিত দেখানো হয়েছে।

    জামায়াত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানের পক্ষে সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়, যার প্রধান কয়েকজন নেতার এ-মুহূর্তে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযোগে বিশেষ ট্রাইবুন্যালে বিচার চলছে। দলটি এ-বিচার প্রক্রিয়ায় বিরোধিতা করে এ-মাসের শুরুতে হরতাল ডাকে, যেদিন দেশজুড়ে ব্যাপক মাত্রায় সহিংসতা ঘটে।

    সারাদেশে পালিত হলেও হরতালে সকলের দৃষ্টি ছিলো মূলতঃ রাজধানী ঢাকার দিকে। বিচ্ছিন্ন কিছু স্বল্পমাত্রার সহিংসতা ছাড়া প্রায় শান্তিপূর্ণ ভাবে পালিত হয়েছে এ-হরতাল। আন্তঃনগর ট্রেইন চলাচল করলেও দূরপাল্লার কোন বাস ঢাকা ছেড়ে যায়নি। পূর্বাহ্নে ঢাকার সড়কগুলোতে যানবাহন তেমন চলাচল না করলেও অপরাহ্নে প্রচুর সংখ্যক রিক্‌শা ও অটোরিক্‌শা চলাচলের খবর পাওয়া গিয়েছে। পুলিস সারাদেশ থেকে মোট ১৫ জন বাম-কর্মীকে আটক করেছে বলে বাসদের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দাবী করা হয়েছে।

    একাধিক বাস-কর্মীর উদ্ধৃতি দিয়ে বাংলাদেশের দৈনিক প্রথম জানিয়েছে 'সরকার-সমর্থক শ্রমিক ও মালিকেরা গাড়ি বের করতে বাধা দিয়েছেন। স্থানীয় থানার পুলিশও গাড়ি বের করতে নিষেধ করেছে'। তবে ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ এ-অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। পুলিশের সহকারী কমিশনার নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেছেন, 'শান্তিপূর্ণ হওয়ায় পুলিশ হরতালের সমাবেশে কোনো বাধা দিচ্ছে না'।

    সিপিবি ও বাসদ এ-বছরের জুলাই মাসে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বৃত্তের বাইরে 'বাম-বিকল্প' গড়ে তোলার ঘোষিত লক্ষ্য নিয়ে জোটবদ্ধ হয়। যদিও সে-ঘোষণা-পত্রে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোকে নিষিদ্ধ করার স্পষ্ট কোন দাবী ছিলো না,  কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়া ও তার বিরুদ্ধে জামায়াতের হরতাল-সহ বিভিন্ন কর্মসূচির প্রেক্ষিতে বাম এ-দল দু'টো জামায়াত নিষিদ্ধের দাবী তুলেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

    হরতালের অন্যান্য দাবীর মধ্যে ছিলো সম্প্রতি তাজরীন ফ্যাশন্‌সে ঘটে যাওয়া অগ্নিকাণ্ডে দোষীদের শাস্তি দেয়া, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানো, শ্রমিকদের ট্রেইড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত করা ইত্যাদি।

    সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও বাসদের সভাপতি খালেকুজ্জামান হরতাল সফল দাবী করে জনগণকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। এক বিবৃতিতে সেলিম বলেন, 'হরতাল কেমন হওয়া উচিত সিপিবি-বাসদ তা বুঝিয়ে দিয়েছে'। তিনি আরও বলেন, 'এ-হরতালের সাফল্যের মধ্য দিয়ে বুঝা গিয়েছে যে সবাই যুদ্ধাপরাধের বিচার চায়'।

    বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেছেন, 'এই হরতালের মধ্যে দিয়ে প্রমাণ হয়েছে, বামপন্থী শক্তিই গণতান্ত্রিক শক্তি লালন ও ধারণ করতে পারে'। এছাড়াও বাম মোর্চাও এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে হরতাল 'সফল' করায় জনগণকে ধন্যবাদ জানান।

    স্বরাষ্ট্র-মন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর হরতাল শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হওয়ায় সিপিবি ও বাসদকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, 'গোটা দেশে অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে তারা হরতাল পালন করেছে। এজন্য তাদের কোথাও বাধা না দিয়ে পুলিশ বরং সহযোগিতা করেছে'।

    অপর দিকে জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী-দল বিএনপি এ-হরতালকে 'সরকারের সহায়তায় পালিত হরতাল' বলে সম্বোধন করেছেন।

পাঠকের প্রতিক্রিয়া

ভাবচি আমি হরতােলর ডাক িদব। সবাই থাকবেন।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন