• দেবযানীকে বহিষ্কার যুক্তরাষ্ট্রেরঃ পাল্টা ব্যবস্থায় মার্কিন কুটনীতিক বহিষ্কার দিল্লি থেকে
    india_usa_diplomatic_row_protest_in_usa.JPG

    ইউকেবেঙ্গলি - ১০ জানুয়ারি ২০১৩, শুক্রবারঃ  ভিসা-জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেফতারিত হয়ে বিবস্ত্র-তল্লাশীর শিকার হওয়া ভারতীয় কূটনীতিক দেবযানী খোবড়াগাড়ের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ গঠন করে তাঁকে বহিষ্কার করেছে যুক্তরাষ্ট্র আজ। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে দিল্লি থেকে সমমর্যাদার একজন মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে ভারত। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানী সেক্রেট্যারী গুরুত্বপূর্ণ ভারত সফর বাতিল করেন। খবর রয়টার্স ও টাইমস অফ ইণ্ডিয়ার।

    বাংলাদেশের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পক্ষে ভারতের ও তার বিপরীতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে দুই দেশের সম্পর্কে জটিলতার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা কয়েক দফায় ঢাকাস্থ ভারতীয় রাষ্ট্রদূত পঙ্কজ শরণের সাথে সাক্ষাত এবং পরে দিল্লি গিয়ে ভারতীয় সরকারের সাথে আলোচনার করেন। কিন্তু তাতেও ফল না পেয়ে তিনি ওয়াশিংটনে যান। নির্বাচন যতোই এগিয়ে আসতে থাকে পরিস্থতি ততোই ঘোলাটে হয়ে ওঠে।

    জাতিসঙ্ঘের বিশেষ দূত ফার্নান্দেজ তারানকো ৬ ডিসেম্বর ২০১৩ ঢাকা আসেন ৫ দিনের সফরে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সমঝোতার সম্ভবনা দেখা গেলেও শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধান খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়ে ১১ তারিখ ফিরে যান তিনি। এ-রকম পরিস্থিতিতে, ১২ তারিখে নিউ ইয়র্কে নিজ সন্তানের স্কুলের সামনে থেকে হাতকড়া পড়িয়ে গ্রেফতার করা হয় ভারতীয় মিশনের কনসাল জেনারেল দেবযানীকে। জবাবে, দিল্লির মার্কিন দূতাবাসের সামনে থেকে নিরাপত্তা-বেষ্টনী সরিয়ে ফেলা হয় এবং সকল মার্কিন কুটিনীতিককে স্বল্পতর সুবিধা দিয়ে নতুন পরিচয়পত্র প্রদান করা হয়।

    ইমেইলে দেবযানী জানান তাকে নগ্ন করে তল্লাশী চালানোর পর ছিঁচকে অপরাধী ও মাদকাসক্তদের সাথে একই হাজত-প্রকোষ্ঠে রাখা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, ভারত থেকে গৃহভৃত্য আনার সময় তিনি তার ভিসা-আবেদনে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন এবং ভৃত্যকে যুক্তরাষ্ট্রের আইনে প্রচলিত ন্যুনতম মজুরি দিচ্ছেন না। এ-সংবাদে ক্ষিপ্ত ভারতীয়রা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন; জেষ্ঠ অনেক রাজনীতিক মার্কিন কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাত করতে অস্বীকার করেন। যুক্তরাষ্ট্রেও অনুরূপ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় তবে, সেখানে ক্ষোভের কারণ ছিলো গৃহপরিচারিকাকে কম মজুরী দেয়া।

    দেবযানী এ-মুহূর্তে বিমানে রয়েছেন ভারতের পথে। মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করলে তাঁকে গ্রেফতার করা হতে পারে। তাঁর স্বামী ও সন্তান, যারা আমেরিকার নাগরিক, শীঘ্রই ভারতে আসবেন বলে জানা গিয়েছে। গৃহপরিচারিকা সঙ্গীতা রিচার্ড্‌সকে যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় দেয়া হয়েছে; তাঁর স্বামী ও সন্তানকে আগেই যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে পৌঁছেছিলেন।

    ডিসেম্বরের শেষদিকে কুটনৈতিক সঙ্কট নিরসনে মার্কিন-ভারত আলোচনা খানিকটা আশার জন্ম দিলেও জ্বালানী সেক্রেট্যারির সফর বাতিল এবং দেবযানীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ও তাঁকে বহিষ্কারের মধ্য দিয়ে স্পষ্ট হলো সঙ্কট এখনও কাটেনি।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন