• পারস্য উপসাগরে মার্কিনীদের প্রবেশ-নিষেধ বললো ইরানঃ প্রত্যাখান করলো পেন্টাগন
    Iran-test-missile.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ৪ জানুয়ারী ২০১২, বুধবারঃ  মার্কিন নৌবহর হরমুজ প্রাণালী দিয়ে আবার পারস্য উপসাগরে প্রত্যাবর্তন করলে ইরান তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে। উত্তরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার নিয়মিত কর্মসূচি অব্যাহত রাখবে বলে ঘোষণা করেছে।

    সপ্তাহ-কাল আগে পারস্য উপসাগর থেকে হরমুজ প্রণালী দিয়ে মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধযাহাজ ইউএসএস জন সি স্টেনিসের ওমান উপসাগর অভিমুখে যাত্রাকে নির্দেশ করে গতকাল মঙ্গলবার ইরানের সামরিক বাহিনীর প্রধান জেনারেল আতাওল্লাহ্‌ সালেনি এক বিবৃতিতে বলেন, ‘হরমুজ প্রণালী দিয়ে ওমান উপসাগরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যে রণতরী গিয়েছে, তাকে আর পারস্য উপসাগরে ফিরে না আসার পরামর্শ দিচ্ছি’। পারস্য উপসাগরে ইরানী বাহিনীর ১০ দিনের এক নৌ-অনুশীলনের শেষে এই বিবৃতি দেন জেনারেল সালেহিন।

    উল্লেখ্য, নৌ-অনুশীলন কালে ইরানী বাহিনী দূর-পাল্লার বিভিন্ন আধুনিক ভূমি-হতে-ভূমি ও ভূমি-হতে-আকাশ মুখীন ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা করে, যা রাশিয়ান সংবাদ মাধ্যম আরটি ‘উপসাগরে মার্কিন উপস্থিতি মোকাবেলা করতে এ-সকল ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষম হবে’ বলে মন্তব্য করে।

    সর্বশেষ সফল ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর ইরানের নৌবাহিনীর প্রধান এ্যাডমিরাল হাবিবোল্লাহ সায়েরি ’এখন থেকে হরমুজ প্রণালী সম্পূর্ণরূপে ইরানের নিয়ন্ত্রণে থাকবে’ বলে দাবী করেন।

    এদিক, ইরানের সতর্কবাণীর প্রত্যুত্তরে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগনের প্রেস সেক্রেট্যারী জর্জ লিটল এক বিবৃতিতে বলেন, ‘পারস্য উপসাগরে মার্কিন সামরিক সম্পত্তির নিয়োগ বিগত দশকগুলোর মতোই অব্যাহত থাকবে’। তিনি মার্কিন নৌবহরের চলাচলকে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারেই হচ্ছে বলে দাবী করেন।

    এছাড়াও, মার্কিন প্রেসিডেন্টের দপ্তর ওয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেট্যারী জ্যে ক্যার্নী ইরানের হুঁশিয়ারিকে তেহরানের দূর্বলতা এবং আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা হিসেবে নাকচ করে দেন। তিনি বলেন, ‘ইরান বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং চেষ্টা করছে তার আচরণ ও অভ্যন্তরীন সমস্যা থেকে মনোযোগ অন্যত্র সরিয়ে নেবার’।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন