• ফিলিপাইনে বংশমোরো গেরিলাদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযানঃ ৬০ মৃত ৬০ হাজার বাস্তুচ্যুত
    phillippine_mnlf_soldiers.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩, রোববারঃ  ফিলিপাইনের মোরোজাতি অধ্যুষিত জ়াম্বোয়াঙ্গা শহরে বড়ো ধরণের সামরিক অভিযান চালাচ্ছে দেশটির সেনাবাহিনী। ৫১ জন বিদ্রোহী-সহ এ-পর্যন্ত অন্ততঃ ৬০ ব্যাক্তির প্রাণহানী ও ৬০ হাজার অধিবাসীর গৃহহারা হওয়ার খবর জানিয়েছে সংবাদ-সংস্থাগুলো।

    ইসলাম ধর্মাবলম্বী মোরো জনজাতির জাতীয়তাবাদী সংগঠন মোরো ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রণ্ট (এমএনএলএফ) ও সরকারী এলিট সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয় গত সোমবার থেকে। সংগঠনটির নেতা প্রফেসর নুর মিসুয়ারি এ-সহিংসতার সূত্রপাতের জন্য সরকারকে দায়ী করেছেন।

    এমএনএলএফ প্রায় ২৫ বছর ধরে স্বাধীনতার যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার পর ১৯৯৬ সালে ম্যানিলার কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে এক সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে স্বায়ত্বশাসন অর্জন করে। কিন্তু সম্প্রতি সরকার অন্য একটি বিদ্রোহী সংগঠন মোরো ইসলামিক লিবারেশন ফ্রণ্ট (এমআইএলএফ)-এর হাতে অঞ্চলটির কতৃত্ব তুলে দেওয়ার উদ্যোগ নেয়। ২০১৬ সালের মধ্যে এমআইএলএফ বৃহত্তর মুসলিম-অধ্যুষিত মিন্দানাও এর ক্ষমতায় আসবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। এমএনএলএফ-এর নুর মিসুয়ারি বলছেন, এটি তাদের সাথে সরকারের ১৯৯৬ সালে কৃত শান্তি-চুক্তির খেলাপ।

    গত সোমবার জাতীয়তাবাদী এমএনএলএফ-এর সশস্ত্র যোদ্ধারা জ়াম্বোয়াঙ্গায় প্রবেশ করে অজানা সংখ্যক ব্যক্তিকে জিম্মি করে। তাদের দাবী ছিলো সরকারের সাথে অধিকতর ইসলামবাদী এমআইএলএফ-এর সমঝোতা-আলোচনার ইতি ঘটানো। জবাবে সরকার ৩,০০০ এলিট সেনার একটি সামরিক অভিযান শুরু করে বলে জানায় আল-জাজিরা। জ়াম্বোয়াঙ্গায় অবস্থানকারী প্রতিনিধির উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদ-সংস্থাটি জানিয়েছে, দিন-রাত যুদ্ধ চলছে সরকারী ও বিদ্রোহী যোদ্ধাদের মধ্যে। অন্ততঃ ৫১ জন বিদ্রোহী ও ৬জন সরকারী সেনা প্রাণ হারিয়েছেন।

    শুক্রবার কেন্দ্রীয় সরকারের ভাইস প্রেসিডেণ্ট জেজোমার বিনয়ের মধ্যস্থতায় এক যুদ্ধ-বিরতিতে উভয় পক্ষ সম্মত হলেও শনিবারই উভয় পক্ষই তা ভঙ্গ করেছে। সরকারী সেনারা ইতোমধ্যেই অনেকগুলো মহল্লা থেকে বিদ্রোহীদের হটিয়ে দিয়েছে। উল্লেখ্য, নুর মিসুয়ারিকে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকে জনসমক্ষে দেখা যায়নি।

     

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন