• বাংলাদেশে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে অচলাবস্থাঃ জাতিসঙ্ঘের হস্তক্ষেপে সমঝোতার আভাস
    oscar_fernandez_taranco.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১০ ডিসেম্বর ২০১৩, মঙ্গলবারঃ বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচনের সময় রাষ্ট্রক্ষমতা কার হাতে থাকবে এ-প্রশ্নকে ঘিরে রাষ্ট্র-ক্ষমতায় আসীন আওয়ামী লীগ ও বিগত সংসদের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি'র মধ্যে অক্টোবর মাস থেকে চলছে সহিংস রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব। এ-অবস্থায় জাতিসঙ্ঘের বিশেষ দূত অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো ঢাকায় এসে উভয় পক্ষকে আজ আলোচনার টেবিলে হাজির করতে সক্ষম হয়েছেন এবং আলোচনা-শেষে 'সমঝোতার সম্ভবনার' কথা জানিয়েছেন অংশগ্রহণকারীরা।

    ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ, জামায়াত ও জাতীয় পার্টির সম্মিলিত আন্দোলনের ফলে তৎকালীন ক্ষমতাসীন বিএনপি সংবিধানে পরিবর্তন এনে নির্বাচনকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্র-পরিচালক হিসেবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করে। সে-সরকারের অধীনে ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে। তবে ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সংবিধানে পরিবর্তন এনে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দেয়। তাই অক্টোবর মাসে নির্বাচিত সংসদের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন আয়োজনের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা পূরণের উদ্দেশ্যে কয়েকটি মিত্র দলকে নিয়ে শেখ হাসিনাকেই প্রধানমন্ত্রী রেখে অস্থায়ী সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। ঘোষণা করা হয় ৫ই জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। বিএনপি তা প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন শুরু করে।

     বাংলাদেশে বিরোধী দলগুলোর হরতাল ও অবরোধের মতো আন্দোলন-কর্মসূচি চলাকালে সহিংসতায় অক্টোবর থেকে এ-পর্যন্ত প্রায় ৬০ ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন। চলন্ত ও থেমে থাকা যানবাহনে অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে নিরীহ চালক ও যাত্রী হত্যা থেকে শুরু করে নিরাপত্তা রক্ষীদের জীবন্ত গুলিতে মূলতঃ ঘটেছে এ-প্রাণহানীর ঘটনাগুলো। তবে তাতেও অচলাবস্থায় বিশেষ কোনো পরিবর্তন ঘটছিলো না - উভয় পক্ষই যার-যার অবস্থানে দৃশ্যতঃ অনড় হয়ে ছিলো। গত শুক্রবার জাতিসঙ্ঘের বিশেষ দূত হয়ে তারানকো ঢাকায় এলে পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটতে শুরু করে।

    বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেত্রী, আওয়ামী লীগ-বিএনপি-জামায়াতে ইসলামী-জাতীয় পার্টির প্রতিনিধি ও নির্বাচন কমিশন সাথে কয়েক দফা বৈঠক করেন তারানকো। এছাড়াও তিনি সাক্ষাত করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত পঙ্কজ শরণের সাথেও। আজ জাতিসঙ্ঘের আবাসিক সন্বয়কারী নীল ওয়াকারের গুলশানস্থ বাসায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি'র কয়েকজন করে প্রতিনিধির সাথে বৈঠক করেন তারানকো। বৈঠকের আগে তারানকো জানান,  দুই পক্ষই ‘সদিচ্ছার সঙ্গে’ সংলাপ চালিয়ে যেতে সম্মত হয়েছে, সংকট উত্তরণের পথে হয়েছে ‘ইতিবাচক অগ্রগতি’। আড়াই ঘণ্টাব্যাপী চলা এ-বৈঠকের ফলাফল জানিয়ে কোনও সংবাদ সম্মেলন এখনও অনুষ্ঠিত হয়নি, তবে সন্ধ্যায় বিএনপি এক বিবৃতির মাধ্যমে 'নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আলোচনায় সম্মত' হওয়ার কথা জানায়।

    আজই তারানকোর ঢাকা থেকে বিদায় নেওয়ার কথা থাকলেও, শেষ মুহূর্তে ‘ইতিবাচক অগ্রগতি' হওয়ায় তিনি আরও একদিন থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন