• বাংলাদেশে পোশাক-কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ১২১ শ্রমিকের মৃত্যুঃ লণ্ডনের দ্য ওয়ার্কার্স ইন্টারেস্ট গ্রুপের নিন্দা ও প্রতিবাদ
    bangladesh_factory_fire_victims.jpg

    লণ্ডন, ২ ডিসেম্বর ২০১২, রোববারঃ বাংলাদেশের একটি পোশাক-কারখানায়  সম্প্রতি ঘটে যাওয়া নজিরবিহীন অগ্নিকাণ্ডে ১২১ জন শ্রমিকের মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে লণ্ডনস্থ দ্য ওয়ার্কার্স ইন্টারেস্ট গ্রুপ। গতকাল পূর্ব লণ্ডনে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদ সভায়  এ-ঘটনা প্রতিরোধ করতে না পারার জন্য সংশ্লিষ্ট কারখানার মালিক ও বাংলাদেশের সরকারকে দায়ী করে তাদের প্রতি নিন্দা জ্ঞাপন করেছে শ্রমিক অধিকার ও স্বার্থ নিয়ে কাজ করা এ-সংগঠনটি।

    প্রাণ হারানো  শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সভার শুরুতে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সভায় পর্যবেক্ষিত হয় যে, গত ৭ বছরে বাংলাদেশের পোশাক কারখানায় একই ধরণের অগ্নি-দূর্ঘটনায় প্রায় ৭০০ শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছেন। কোন ধরণের ব্যতিক্রম ছাড়া প্রতিটি ঘটনায় দেখা গিয়েছে যে, দূর্ঘটনা কবলিত কারখানাগুলোতে  জরুরী নির্গমণ পথ ছিল না বা কখনও-কখনও থাকলেও তা পর্যাপ্ত ছিল না। বাংলাদেশে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দেয়ার আইন থাকলেও তা বাস্তবায়নে সরকারী কর্তৃপক্ষ পৌনঃপুনিকভাবে ব্যর্থ হয়ে আসছে। ফলে এ-ঘটনায় মালিকের সাথে-সাথে সরকারও দায়ী।

    গত ২৫ ও ২৬ নভেম্বর তারিখে ঢাকার অদূরে সাভারের নিশ্চিন্তপুরে অবস্থিত তুবা গ্রুপের মালিকনাধীন তাজরীন ফ্যাশনস্‌-এর নয় তলা বিশিষ্ট কারখানা-ভবনের নীচতলায় আগুন লাগে। এতে ফ্যায়ার এ্যালার্ম বেজে উঠলেও কর্তৃপক্ষ ভবনের মূল ফটক তালাবদ্ধ করে শ্রমিকদেরকে ভবনের ভেতরে অবস্থান করতে বাধ্য করে। কোন ধরণের ফায়ার এস্কেইপ বা জরুরী নির্গমণ পথ-বিহীন এ-ভবনের আগুন নেভাতে দমকল কর্মীদের প্রায় পাঁচ ঘণ্টা লেগে যায়, ততোক্ষণে ১২১ জন শ্রমিক জীবন্ত দগ্ধ হয়ে প্রাণ হারান।

    এ-দূর্ঘটনাকে 'পরিকল্পিত' ষড়যন্ত্র আখ্যায়িত করে দেয়া বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের সমালোচনা করা হয় এ-সভায়। বক্তারা একে মূল অপরাধীদেরকে আড়াল করার চেষ্টা হিসেবে চিহ্নিত করেন।

    দ্য ওয়ার্কার্স ইন্টারেস্ট গ্রুপ বাংলাদেশের সরকার ও পোশাক কারখানার মালিকদের কাছে দাবী করে অবিলম্বে প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের যথাযত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, আহত ব্যাক্তিদের বিনা খরচে সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে, জরুরী নির্গমণ পথ না থাকার পরও কীভাবে তাজরীন ফ্যাশনসের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যেতে পারলো তা তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে, ভবিষ্যতে এ-ধরণের ঘটনা রুখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

    [সংবাদ বিজ্ঞপ্তি]

     

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন