• বাংলাদেশে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে ২ লাখ পোশাক-শ্রমিকের বিক্ষোভঃ পুলিসের সাথে সংঘর্ষে আহত ১৫০
    bangladesh_rmg_workers_rally.png

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩, বুধবারঃ  'ন্যূনতম মানবিক' মজুরির দাবিতে টানা পঞ্চম দিনের মতো চলছে বাংলাদেশের পোশাক-শ্রমিকদের হরতাল-বিক্ষোভ। জবাবে টীয়ার গ্যাস, রাবার বুলেটের গুলি ও গণহারে লাঠিচার্জ প্রয়োগ করছে পুলিস। বাংলাদেশের ডেইলি স্টার জানিয়েছে, পুলিস-শ্রমিক সংঘর্ষে অন্ততঃ ১৫০ জন আহত হয়েছে।

    পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম তৈরি-পোশাক উৎপাদনকারী দেশ বাংলাদেশে সে-শিল্পের শ্রমিকদের বেতন সমগ্র পৃথিবীর মধ্যে সর্বনিম্ন - মাসিক ৩,০০০ টাকা বা প্রায় ৩৮ ডলার। শ্রমিকরা বলছেন, এ-মজুরিতে মানবিকভাবে প্রাণ ধারণ করা তাঁদের পক্ষে প্রায় অসম্ভব।

    অন্ততঃ ৮,০০০ টাকা অর্থাৎ প্রায় ১০০ মার্কিন ডলার সম-পরিমাণ মাসিক ন্যূনতম বেতনের দাবিতে ঢাকা ও আশপাশের এলাকাগুলোর কারখানায় কর্মবিরতি পালন করছেন শ্রমিকরা। গাজীপুরের ইণ্ডাস্ট্রিয়্যাল পুলিসের একজন কর্মকর্তা বার্তাসংস্থা এএফপিকে সোমবার জানান, প্রায় ২ লাখ শ্রমিক যোগ দিয়েছে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বড়ো শ্রমিক অসন্তোষে।

    দৃশ্যতঃ কারখানার মালিকরা আগ্রহী নন শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানোর দাবি-পূরণে। তাঁরা পাল্টা প্রস্তাব দিয়েছেন, ৬০০ টাকা যোগ করে মাসিক বেতন ৩,৬০০ টাকা করার। তাঁদের বক্তব্য, পশ্চিমা ক্রেতারা বাড়তি বেতনের জন্য বাড়তি মূল্য দিতে অনাগ্রহী। মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ এ-পরিস্থিতিতে সরকারের হস্তক্ষেপ আহবান করেছে।

    ধর্মঘটি শ্রমিকরা মিছিল সহযোগে চালু কারখানার কর্মীদেরকেও আহবান জানাচ্ছেন কর্মবিরতিতে যোগ দিতে। এ-পর্যন্ত ৪০০টি কারখানার শ্রমিকরা পথে নেমেছেন বলে জানিয়েছে একাধিক সংবাদ সংস্থা। গত ৪ দিনে অসংখ্যবার ঘটেছে পুলিসের সাথে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনা। ঢাকা, গাজীপুর, সাভার, নারায়ণগঞ্জ এমনকি টাঙ্গাইলেও ঘটেছে পুলিসের সাথে শ্রমিকদের সংঘর্ষ।

    সোমবার গাজীপুরের রৌজ নিটিং, সুমন টেক্সটাইল ও কলৌসাস এ্যাপারেল-এর বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা লাঠি-বাঁশ সহযোগে ভোগরা উপজেলার একটি আনসার ক্যাম্পে হামলা চালায়। এ-সময় তারা অন্ততঃ আটটি রাইফেল কেড়ে নেয়। পুলিস অবশ্য পরে চারটি রাইফেল উদ্ধার করতে সক্ষম হয়, বাকি চারটিতে  শ্রমিকরা আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করে।

    বাংলাদেশের সরকার পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন নির্ধারণে একটিমজুরি বৌর্ড গঠন করেছে গত মে মাসে। তবে সে-বৌর্ডের সুপারিশ আগামী নভেম্বরের আগে প্রকাশিত হবে না।

    স্থানীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেণ্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) উভয় পক্ষের মধ্যে সমঝোতামূলক ৬,৫৬০ টাকার ন্যূনতম বেতন নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে। তবে সংস্থাটি স্বীকার করেছে যে, জীবনযাত্রার ব্যয় আমলে নিলে ন্যূনতম বেতন অন্ততঃ ৮,২০০ টাকা হওয়া উচিত।

    অত্যন্ত নিম্ন মজুরির পাশাপাশি বাংলাদেশের পোশাক-কারখানাগুলো নিরাপত্তাহীনতার জন্য কুখ্যাত। গত এপ্রিল মাসে ঢাকার কাছে সাভারে রানা প্লাজা নামের একটি কারখানা ভবন ধ্বসে পড়ে ১,১০০-র বেশি শ্রমিক প্রাণ হারান। গত বছর নভেম্বরে তাজরীন ফ্যাশনস নামের অন্য একটি কারখানায় আগুন লেগে নিহত হন ১২১ জন শ্রমিক।

    পোশাক-শিল্প থেকে বাংলাদেশ বছরে প্রায় ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার উপার্জন করে, যা দেশটির রপ্তানি-আয়ের প্রায় ৮০ শতাংশ।এ-খাতে প্রায় চল্লিশ লাখ শ্রমিক কর্মরত রয়েছেন, যাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই তরুণী। এ-সপ্তায় ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা বিবিসির একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলা হয়েছে তাঁরা বাংলাদেশে এমনও পোশাক কারখানার সন্ধান পেয়েছেন যেখানে দরোজা বন্ধ করে দিয়ে দৈনিক ১৯ ঘণ্টা করে শ্রমিকদের খাটানো হয়। প্রায়শঃই নারী কর্মীদের মালিকপক্ষের নিযুক্ত ব্যবস্থাপক বা তাদের সহযোগীদের হাতে যৌন নির্যাতনের শিকার হওয়ার অভিযোগ আসে।

     

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন