• বাংলাদেশে সাড়ে ছ’শতাধিক বিদ্রোহী সেনাকে কারাদণ্ড দেয়া হলো
    Bangladeshi-soldiers-007.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি, ২৮ জুন ২০১১, মঙ্গলবারঃ  বাংলাদেশে উচ্চ-মর্যাদা সম্পন্ন সেনাবাহিনীর অফিসারদের বিরুদ্ধে অপেক্ষাকৃত নিম্ন-মর্যাদা সম্পন্ন সীমান্তরক্ষী বাহিনীর ২০০৯ সালের ব্যর্থ বিদ্রোহের পরিণতিতে গ্রেফতারিতদের শাস্তি ঘোষণা করে রায় শুনিয়েছে সেনা-নেতৃত্বাধীন বিশেষ আদালত। বাংলাদেশী গণ-মাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, মোট ৬৫৮ জনকে দোষী সাব্যস্ত করে সর্ব-নিম্ন চার মাস থেকে সর্বোচ্চ ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে এবং ৯ জন খালাস পেয়েছেন। সর্বোচ্চ সাজা পেয়েছেন ১০৮ জন এবং প্রত্যেককে জরিমানা করা হয়েছে ১০০ টাকা (প্রায় ৮৫ পেন্স)।

    বিদ্রোহে নেতৃত্বদানকারীদের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য অংশ বন্দী থাকা অবস্থাতেই অস্বাভাবিক ভাবে প্রাণ হারান। তবে, এ মৃত্যুর পিছনে প্রতিশোধ স্পৃহা ছিলো কি-না, তা খতিয়ে দেখার তেমন কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়নি।

    বিদ্রোহের সংবাদ প্রকাশিত হবার শুরুতে গণ-মাধ্যমগুলো বিদ্রোহী-বান্ধব সংবাদ ও চিত্র প্রচার করলেও দ্রুত তার পরিবর্তন ঘটে। বিদ্রোহীদের করা হত্যাকাণ্ডের চিত্র অচিরেই দেশ-ব্যাপী মনোভাবের পরিবর্তন ঘটায়। এমনকি, সদ্য নির্বাচিত শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ সরকার শুরুতে বিদ্রোহীদের প্রতি অস্ত্র-ত্যাগের বিনিময়ে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করলেও পরবর্তীতে তিনি তা প্রত্যাহার করেন।

    ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারীতে সংঘটিত বিদ্রোহীটিকে দেশটির রাজনীতিক ও বুদ্ধিজীবীরা বাইরের ‘ষড়যন্ত্র’ বলে নিশ্চিত ধরে নিয়ে ব্যাপক লেখা-লেখি ও আলোচনা করেছিলেন, যা শেষ পর্যন্ত প্রমান করা যায়নি। তবে, ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলো ছিলো লক্ষ্যণীয়ভাবে পরস্পর বিরোধী রাজনৈতিক লাইনে বিভক্ত।

    বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও অধিকাংশ বামপন্থীদলের কাছে এটি ছিলো একটি ‘পাকিস্তানী ষড়যন্ত্র’। বিপরীতে, বিরোধী দল বিএনপি ও তার মিত্র ইসলামিক দলগুলো ঘটনাটিকে ‘ভারতীয় ষড়যন্ত্র’ বলে প্রচার করে।

    ধারণা করা যায়, এ-বিপরীত প্রবণতার ষড়যন্ত্র তত্ত্বের কারণে বিদ্রোহের বস্তুনিষ্ঠ উপলব্ধি ব্যাহত হয়ে থাকবে।

    মেজর জেনারেল মোহাম্মদ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বাধীন আদলতের রায় ঘোষণার মধ্য দিয়ে দু’বছর আগের বহুল আলোচিত এই বিদ্রোহ-কাহিনী ও তার ব্যাখ্যাকারী ষড়যন্ত্র তত্ত্বসমূহের একটি আনুষ্ঠানিক পরিসমাপ্তি ঘটলো।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন