• ব্রাজ়িলে বিরাটাকারের গণবিক্ষোভঃ সামলাতে সেনা-পুলিস প্রেরণ
    brazil_protest_17Jun13.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১৯ জুন ২০১৩, বুধবারঃ  দক্ষিণ আমেরিকার ব্রাজ়িলে কয়েক দশকের মধ্যে বৃহত্তম গণবিক্ষোভ চলছে। গণপরিবহণের ভাড়া বৃদ্ধি, বিভিন্ন পরিষেবার নিম্নমান ও আসন্ন ফুটবল আসর উপলক্ষ্যে বিপুল ব্যয়ের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গণ-অসন্তোষ গত সপ্তায় গণবিক্ষোভে রূপ নিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে বড়ো শহরগুলোতে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম অংশগ্রহণকারীদের সংখ্য লাখ-লাখ বলে উল্লেখ করেছে।

    গত সপ্তায় সাও পাওলোতে বাস, ট্রেইন ইত্যাদি গণপরিবহণ বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পুলিস 'অত্যধিক বলপ্রয়োগ করে'। ১৩ তারিখের বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিস লাঠিচার্জ, টীয়ার গ্যাস নিক্ষেপের সাথে-সাথে রবার আচ্ছাদিত বুলেটও ব্যবহার করে। গ্রেফতার করে অন্ততঃ ৬০জনকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে অন্যান্য শহরেও বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়। দৃশ্যতঃ শুরুতে বিক্ষোভের প্রতি সাধারণ মানুষের ব্যাপক সমর্থন না দেখা গেলেও সাও পাওলোতে 'পুলিসী বর্বরতার' কারণে মানুষ পথে নামতে শুরু করে।

    গতকাল একাধিক শহরে রায়ট পুলিসের সাথে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সাও পাওলোতে বিক্ষুব্ধরা মেয়র অফিস দখল করে নেয়ার চেষ্টা করে। তবে সামগ্রিক বিচারে আন্দোলকরা শান্তিপূর্ণই ছিলেন বলে মন্তব্য করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো। দেশটির প্রেসিডেণ্ট জিমা হুসেফ অশান্তি সৃষ্টিকারীদের নিন্দা করেছেন। তবে তিনি অবশ্য বলেছেন, শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের জন্য তিনি গর্বিত। আজ থেকে অন্ততঃ পাঁচটি বড়ো শহরে সেনা-পুলিস মোতায়েন করেছে সরকার।

    এ-বছর ব্রাজ়িলে অনুষ্ঠিত হবে ফুটবলে আসত কনফেডারেশন কাপ, আগামি বছর বিশ্বকাপ ও ২০১৬-তে গ্রীষ্ম অলিম্পিক। এগুলোর প্রস্তুতিতে বড় আকারের বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে। এমন অবস্থায় পরিবহণ ভাড়া বাড়ানোতে ক্ষোভে ফেটে পড়ে সাও পাওলোর মানুষ। তাদের দাবি স্টেডিয়াম নির্মাণ নয় - শিক্ষা, চিকিৎসা ও পরিবহণের মতো পরিষেবার মান বাড়াতে হবে। আন্দোলনের সংগঠক হিসেবে সবচেয়ে বড়ো ভূমিকা রাখছে ফ্রী ফেয়ার মুভমেণ্ট নামের একটি সামাজিক আন্দোলন প্লাটফরম, যা গণপরিবহণকে বেসরকারী মালিকানা থেকে রাষ্ট্রায়ত্ব খাতে আনতে চায়।

    ১৯৯২ সালের পর ব্রাজ়িলে এতো বড়ো বিক্ষোভ আর দেখা যায়নি বলে মন্তব্য করছেন অনেকে। গত দুই দশক ধরেই দেশটি অর্থনৈতিক সম্ভাবনার কারণে  আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে আলোচিত হচ্ছে। ঊদিয়মান পঞ্চশক্তি ব্রিক্‌সের শুরুতেই রয়েছে ব্রাজ়িলের নাম। তবে নাগরিকদের অভিযোগ সবচেয়ে উঁচুতলা ছাড়া সমগ্র সমাজেই দারিদ্য আর নিরাপত্তাহীনতা প্রকট। দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির কারণে সরকার-ব্যবস্থার উপরে তাদের আস্থা কম।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন