• ব্রিটিশ হাসপাতালে বিষক্রিয়ায় ১৫ নবজাতক অসুস্থঃ ১ শিশুর মৃত্যু
    uk_neonatal_care.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ৪ জুন ২০১৪, বুধবারঃ  ব্রিটেইনে হাসপাতালের তত্ত্বাবধানে থাকা অবস্থায় ব্যাক্টেরিয়াক্রান্ত তরল খাদ্যের মাধ্যমে ১৫টি নবজাতক শিশু বিষক্রিয়ার শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে একটি শিশু ইতোমধ্যে মারা গিয়েছে। বাকি ১৪টি শিশুর চিকিৎসা চলছে যদিও তারা এখনও পুরোপুরি শঙ্কামুক্ত নয়। সংবাদ জানিয়েছে বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান ও দ্য ইণ্ডিপেণ্ডেণ্ট।

    পূর্ণ গর্ভকাল সম্পন্ন হওয়ার আগেই জন্মানো এ-শিশুগুলো লণ্ডন ও দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যাণ্ডের পৃথক ছয়টি হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা বিভাগে চিকিৎসাধীন ছিলো। মুখে খাদ্য গ্রহণে অক্ষম এ-শিশুগুলোকে সরাসরি রক্তের মধ্যে তরল খাদ্য দেওয়া হচ্ছিলো। আইটিএইচ ফার্মা লিমিটেড নামের একটি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানের সরবরাহকৃত তরল খাদ্যকে এখন সন্দেহ করা হচ্ছে। কারণ সংশ্লিষ্ট প্রতিটি হাসপাতালের খাদ্যই আইটিএইচ ফার্মা সরবরাহ করেছে - জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।

    প্রতিটি ক্ষেত্রেই সে-খাদ্য একই ব্যাচ থেকে পাঠানো হয়েছিলো। চিকিৎসা সংক্রান্ত কর্তৃপক্ষ মেডিকেল এ্যাণ্ড হেল্‌থকেয়ার রেগুলেটরি অথোরিটি (এমএইচআরএ)-এর তদন্তে জানা গিয়েছে, যে-কারখানায় তরল শিশু-খাদ্য প্রস্তুত হয় সেখানে একটি দুর্ঘটনার ফলে কোনও কোনও ব্যাচের খাদ্যে 'ব্যসিলাস সেরিয়াস' নামক একটি ব্যাক্টেরিয়ায় সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারে।

    পাবলিক হেল্‌থ ইংল্যাণ্ড (পিএইচই)-এর প্রফেসর মাইক ক্যাচ্‌পৌল বলেছেন, "এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা এবং কীভাবে এ-শিশুগুলো আক্রান্ত হলো তা জানতে এমএইচআরএ-এর সাথে পিএইচই খুব ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাচ্ছে।" আইটিএইচ ফার্মার সরবরাহকৃত খাদ্যের দিকে সন্দেহের তীর তাক করে তিনি বলেন, "...আমরা এ-ব্যাক্টেরিয়ার অন্যান্য উৎস সন্ধানেও কাজ করছি। অবশ্য, এখন পর্যন্ত করা সকল তদন্তে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে সম্ভাব্য উৎসটি চিহ্নিত হয়েছে।" 

    সর্বপ্রথম শিশু বিষক্রিয়ার ঘটনাটি ঘটে লণ্ডনের চেলসি এ্যাণ্ড ওয়েস্টমিন্‌স্টার হাসপাতালে গত শুক্রবার। শনিবার  পিএইচইকে এ-সম্পর্কে অবহিত করা হয়। রোববার নাগাদ ঐ হাসপাতালে মোট চারটি শিশু এ-বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়। সোমবার জানা যায় গাইস এ্যাণ্ড সেইণ্ট থমাসেস হাসপাতালে তিনটি শিশু ও হুইটিংটন হাসপাতালে আরও একটি শিশু একই পরিস্থিতির শিকার হয়েছে। গাইস এ্যাণ্ড সেইণ্ট থমাসেস হাসপাতালে একটি শিশু পরে মারা যায়।

    বিষক্রিয়া লণ্ডনেই সীমাবদ্ধ - শুরুতে এমন মনে করা হলেও পরে দেখা যায় ব্রাইটন, সাসেক্স, ক্যাম্ব্রিজ, লুটন ও ডান্সট্যাবলেও একই বিষক্রিয়ার আক্রান্ত হয়েছে নিবিড় পরিচর্যা গ্রহণরত নবজাতকেরা। ব্যাক্টেরিয়ার উৎস নিয়ে গত তিন দিন ধরে বিভ্রান্তির পর মাত্র আজ ভোরেই তা চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে।

    সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলো জানিয়েছে আক্রান্ত শিশুদেরকে এ্যাণ্টি-বায়োটিকের মাধ্যমে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে এবং তারা তাতে ভালোই সাড়া দিচ্ছে। তবে দূর্বল এ-শিশুগুলোর বেশ কয়েকটি এখনও সঙ্কটমুক্ত নয়।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন