• ভারতের দাবীঃ মুম্বাই-হানাদারদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে পাকিস্তানী গোয়ন্দেরা

    গত সপ্তাহে মুম্বাইয়ে হামলার সাথে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার জড়িত থাকার সুনির্দিষ্ট প্রমাণ ভারতীয় কর্তৃপক্ষের হাতে থাকার খবর বেরিয়েছে মিডিয়াতে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে পরমাণু শক্তিধর দু-দেশের মধ্যে দৃশ্যতঃ উত্তেজনা প্রশমনের চেষ্টা ছাড়াও, মুম্বাই হামলর ব্যাপারে ভারতে সহায়তা দানের ব্যাপারে পাকিস্তানের উপরে চাপ বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া বিদ্যমান পরিস্থিতি দেশের সমর প্রস্তুতি কোন্‌ অবস্থায় আছে, তা নিয়ে শীর্ষ জেনারেলদের সাথে আলাপে বসেছেন পাক সেনাবাহিনীর প্রধান।

    সরকারের ভেতরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রকে উদ্ধৃত করে ভারতের প্রভাবশালী দ্য হিন্দু পত্রিকা জানিয়েছে মুম্বাইয় হামলার ব্যাপারে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইর হাত থাকার প্রমাণ নয়াদিল্লীর হাতে আছে। তবে ব্যাপারটি নিয়ে সরকারীভাবে কোনো বক্তব্য আসার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানানো হয়েছে। পত্রিকার মতে কর্তৃপক্ষ মনে করে, এমন কিছু করা হলে ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে যারা ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের ভূমিকা বড়ো হয়ে উঠবে।

    দ্য হিন্দুর তথ্য-মতে, হামলাকারীদের প্রশিক্ষকদের নাম-ধাম থেকে শুরু করে কোথায় প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে, তার খবরাখবরও তদন্তকারীদের হাতে আছে। এছাড়াও ভিওআইপি প্রযুক্তি ব্যবহার ভিত্তিক কিছু যোগাযোগের ক্ষেত্রেও আইএসআইর লোকজনের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। প্রতিবেদন-মতে, মুম্বাইয় হামলার সাথে আইএসআই ও সেনাবাহিনীর জড়িত থাকার ব্যাপারে নিশ্চিত হলেও, পাকিস্তানের সরকার এর সাথে জড়িত আছে বলে মনে করছে না ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। আফগানিস্তান সীমান্তে তালেবানদের সাথে লড়াইকে ঘিরে ভয়াবহ রকমের চাপ থেকে হালকা হবার লক্ষ্যে পাক সেনাবাহিনী ভারতীয় সীমান্তে উত্তেজনা তৈরী করতে চাইছে বলেও জানানো হয়েছে বৃহস্পতিবারে প্রতিবেদনে। পাক সরকারের উপরে গোয়েন্দা সংস্থা ও সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারটিকে মাথায় রেখেই ভারতীয় কর্তৃপক্ষ যতটা সম্ভব কৌশলে অগ্রসর হচ্ছে বলে জানিয়েছে পত্রিকা।

    এদিকে, মুম্বাই হামলাকে ঘিরে পরমাণু শক্তিধর দু-প্রতিবেশীর মধ্যে উত্তেজনা নিরসনের লক্ষ্যে তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া মুম্বাই হামলার ব্যাপারে সহায়তা দানের জন্যও পাকিস্তানের উপরে চাপ প্রদান অব্যাহত রাখা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে হামলার ব্যাপারা নয়াদিল্লীর সাথে 'জরুরী-ভিত্তিতে' 'পূর্ণ ও স্বচ্ছ' সহযোগিতা দানের জন্য ইসলামাবাদের প্রতি আহবান জানানো হয়েছে। ওয়াইট হাউস মুখপাত্র ডানা পেরিনৌ এ-প্রসঙ্গে বলেন এ-ব্যাপারটিতে যাতে কার্যকর হয়, সে-ব্যাপারে আমার সাহায্য দিয়ে যাবো। মুম্বাই হামলাতে ছয়জন মার্কিন নাগরিক নিহত হবার কথা উল্লেখ করে পেরিনৌ বলেন, 'আমরা একে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে নিচ্ছি।'

    এদিকে আজন্ম-বৈরী প্রতিবেশীর সাথে উত্তেজনার মুখে শীর্ষ জেনারেলদের সাথে সমর-প্রস্তুতি বিষয়ক এক বৈঠকে বসেছেন পাক সেনা-প্রধান জেনারেল পারভেজ কিয়ানী। বৈঠকের পরে দেয়া এক বিবৃতিতে কিয়ানী বলেন, 'পাকিস্তান সেনাবাহিনী শান্তি ও নিরাপত্তার পক্ষে।' আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষা পাবার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন কিয়ানী।

    বিবৃতিতে জানানো হয়, বৃহস্পতিবারের বৈঠকটিতে পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তৃত আলাপ-আলোচনা করা হয়েছে। কিয়ানী তার বাহিনীর প্রস্তুতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলেও জানা গেছে বিবৃতি থেকে। উল্লেখ্য, কিয়ানী এমন একদিনে কমান্ডারদের সাথে বৈঠকে বসেছেন, যেদিন মার্কিন সেক্রেটারী অফ স্টেইট কন্ডৌলিৎসা রাইস ইসলামাবাদে হাজির হয়ে মুম্বাইয়ে হামলার তদন্তে ভারতকে সহযোগিতা দেয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারির সাথে বৈঠকে মিলিত হয়েছেন। জারদারী রাইসকে জানিয়েছেন, পাকিস্তান শুধু তদন্তেই সহযোগিতা দিবে না, কোনো পাকিস্তানী ঘটনার সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেলে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থাও করবে।

    লন্ডনঃ ৪ ডিসেম্বর ২০০৮

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন