• মঙ্গল গ্রহে রকেট পাঠাচ্ছে ভারত আগামী সপ্তায়
    india_ready_for_mars_mission.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১ নভেম্বর ২০১৩, শুক্রবারঃ সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী মঙ্গলবার বিকেলে মঙ্গল গ্রহের উদ্দেশ্যে নভোযান পাঠাবে ভারত। এর মধ্য দিয়ে দেশটি অর্জন করবে মঙ্গলে অভিযানকারী চতুর্থ দেশের মর্যাদা।

    অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিৎকোটে অবস্থিত সতীশ দেওয়ান স্পেইস স্টেশন থেকে উৎক্ষিপ্ত হবে ৬২ নিযুত (মিলিয়ন) পাউণ্ড মূল্যের প্রাণীবিহীন রকেট 'মঙ্গলযান'। প্রায় ৩০০ দিন মহাকাশ ভ্রমণ শেষে এটি পৌঁছুবে লোহিত গ্রহ মঙ্গলের কক্ষপথে।

    গত বছর ভারতীয় স্বাধীনতা দিবস ১৫ অগাস্টে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং মঙ্গল অভিযানের কথা ঘোষণা করেন। তিনি বলেছিলেন, "আমাদের নভোযান মঙ্গলগ্রহের কাছে যাবে এবং গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিক উপাত্ত্ব সংগ্রহ করবে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে [উন্নয়নে] এটি হবে আমাদের জন্য এক বিরাট ধাপ।"

    ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বলেছে, এ-অভিযানের উদ্দেশ্য একান্তই বৈজ্ঞানিক গবেষণা। তবে রাজনৈতিক মহলে এটি চীনের আগে মঙ্গলে যাওয়ার প্রচেষ্টা হিসেবে পর্যবেক্ষিত হচ্ছে। এশিয়া মহাদেশে অর্থনৈতিক দুই উদীয়মান শক্তির মহাকাশ প্রতিযোগিতা আরও অন্যান্য দেশকেও এতে টেনে আনবে বলে মনে করা হচ্ছে।

    লক্ষ-লক্ষ লোক দারিদ্রসীমার নিচে বাস করা ভারতে এ-ধরণের ব্যয়বহুল প্রকল্পের বদলে দারিদ্র্য দূরীকরণে অর্থ ব্যয় করা উচিত বলে মনে করছেন অনেক পর্যবেক্ষক। দিল্লি ভিত্তিক মানবাধিকার কর্মী হর্ষ মন্দর মন্তব্য উল্লেখ করে দ্য ইণ্ডিপেণ্ডেণ্ট জানাচ্ছে, "ভারতে প্রতিবছর বিশ লাখ মানুষ মারা যায় যা সম্পূর্ণরূপে এড়ানো সম্ভব।"

    ইণ্ডিয়ান স্পেইস রিসার্চ অর্গানাইজ়েশনের প্রাক্তন প্রধান কৃষ্ণস্বামী কস্তুরীরঙ্গন বলেছেন, "গ্রহাদির গবেষণায় পরবর্তী যুক্তিযুক্ত ধাপ হচ্ছে মঙ্গলে [যান] পাঠানো।" ২০০৮ সালে চন্দ্র অভিযানে ভারতের মহাকাশযান পাঠানোর সাফল্যের পেছনে বিশেষ ভূমিকার জন্য কৃষ্ণস্বামীকে কৃতিত্ব দেয়া হয়।

    উল্লেখ্য, এ-পর্যন্ত রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় স্পেইস এজেন্সি মঙ্গল গ্রহে মহাকাশযান পাঠিয়েছে। রাশিয়ার সাহায্য নিয়ে গত বছরে চীন একটি ছোট যান মঙ্গলের উদ্দেশ্যে পাঠালেও সেটি দু'মাস পরে ভ্রমণ পথ থেকে ছিটকে এসে পৃথিবীতে পড়ে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন