• 'মানবতা-বিরোধী অপরাধের অভিযোগ' বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধেঃ তদন্তের অবেদন
    icon_law.jpeg

    ইউকেবেঙ্গলি - ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪, মঙ্গলবারঃ বাংলাদেশের সরকারের বিরুদ্ধে 'মানবতা-বিরোধী' অপরাধের অভিযোগ তুলে আন্তর্জাতিক অপরাধী আদালতকে তা তদন্ত করার অনুরোধ করেছে ব্রিটেইনভিত্তিক একটি আইনী প্রতিষ্ঠান। আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে এ-কথা, যাতে আরও দাবি করা হয়েছে যে, আবেদনের সাথে বাংলাদেশের সরকারের কৃত 'মানবতা-বিরোধী অপরাধের' ব্যাপারে 'শক্ত প্রমাণ' দাখিল করা হয়েছে।

    লণ্ডনের নাইন ব্র্যাডফৌর্ড রৌ ইণ্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠানটি আজ ইণ্টারন্যাশনাল কোয়ালিশন ফর ফ্রীডম্‌স এ্যাণ্ড রাইট্‌স নামের একটি মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষে নেদারল্যাণ্ড্‌সের হেইগে অবস্থিত আন্তর্জাতিক আদালতে এ-বিষয়ে একটি আবেদন করেছে। উল্লেখ্য, এ-প্রতিষ্ঠানের আইনবিদ টোবি ক্যাডম্যান বাংলাদেশের মানবতা-বিরোধী অপরাধে অভিযুক্তদেরকে আইনগত সহায়তা দিয়েছেন।

    টোবি ক্যাডম্যানের স্বাক্ষর করা আবেদন-সংক্ষেপে বলা হয়, বাংলাদেশের বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে চলমান অপরাধসমূহের সাথে সম্পর্কিত সম্ভ্যাব্য অভিযোগ গঠনের উদ্দেশ্যে এ-আবেদনটি পাঠানো হয়েছে। এ-দলিলটিতে বাংলাদেশের ২৫টি জেলায় 'সংঘটিত' মোট ৬টি সম্ভ্যাব্য অপরাধ অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, হত্যা, নির্যাতন, গুম-সহ পাঁচ ধরণের মানবতা-বিরোধী অপরাধ ও গণহত্যার ইন্ধন দেওয়া।

    সম্ভ্যাব্য অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াজেদ ও তাঁর মন্ত্রীসভার কয়েকজন জেষ্ঠ্য সদস্য। এছাড়াও রয়েছেন পুলিসের কমিশনার এবং র‍্যাব ও বিজিবির পরিচালক; এঁরা রাজনৈতিক বা পুলিসী কর্মকাণ্ড কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারতেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে আবেদনে। সরকারের একজন পরামর্শক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের গত বছরের ১৮ নভেম্বর তারিখে করা 'বিরোধী ইসলামী দলকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার আহবান' ও পরবর্তীতে 'অসংখ্য' বিরোধী রাজনৈতিক কর্মী খুন হওয়ার কথা উল্লেখ করে কার্যতঃ তাঁকেও সম্ভ্যাব্য অভিযুক্তদের তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে।

    উল্লেখ্য, ইণ্টারন্যাশনাল কোয়ালিশন ফর ফ্রীডম্‌স এ্যাণ্ড রাইট্‌স নামের সংগঠনটি গত বছর তুরষ্কের ইন্তাম্বুলে জন্ম নেয়। বার্তাসংস্থা এসৌসিয়েটেড প্রেস (এপি) উল্লেখ করেছে, মিসরের প্রেসিডেণ্ট মোহাম্মদ মুর্সি সেনাবাহিনী কর্তৃক ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার ঘটনাটিকে আইনী আওতায় আনতে ইসলামবাদীদের প্রচেষ্টার সাথে এ-সংঘটি ঘনিষ্টভাবে সম্পর্কিত।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন