• মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামার তৃতীয় ইউনিয়ন অফ স্টেইট ভাষণঃ বিবিধ সংস্কার প্রতিশ্রুতি
    Obama-Lecture.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৫ জানুয়ারী ২০১২, বুধবারঃ  মার্কিন কংগ্রেসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা গত রাতে তাঁর তৃতীয় বার্ষিক ইউনিয়ন অফ স্টেইট ভাষণ দান করতে গিয়ে নিজের মেয়াদ-কালে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সাফল্য দাবী করার পাশাপাশি সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংস্কারের কথা ঘোষণা করেন।

    বিপুল করতালির উদ্রেগ করে প্রেসিডেন্ট ওবামা ইরাক থেকে সৈন্য প্রতাহারের সমাপ্তি, আফগানিস্তান থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত, ওসামা বিন লাদেনের হুমকি নির্মূল, আল-কায়েদার শক্তি নাশ, মুয়াম্মার গাদ্দাফির বিনাশ, ইত্যাদি ঘটনাকে তাঁর সময়-কালের সাফল্য বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী আমেরিকার সম্মান বৃদ্ধি পেয়েছে’।

    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে নতুন প্রাণ সঞ্চার করার লক্ষ্যে বিদেশে উৎপাদন ও মুনাফা করার চেয়ে নিজ-দেশে উৎপাদন উৎসাহিত করার জন্য উদ্দীপক-দানের ট্যাক্স সংস্কারের ঘোষণা দেন।

    মার্কিন দেশে মধ্যবিত্তের সঙ্কোচনের প্রতি আলোকপাত করে প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেন, বিত্তশালী ও সাধারণ আয়ের মানুষদের মধ্য ফারাক বাড়ছে। তিনি বিত্তশালীদের অধিক কর আরোপের সুপারিশ করেন। তিনি বলেন, যে পরিবারগুলো বার্ষিক ২৫০,০০০ ডলার আয় করে তাদের ট্যাক্স বৃদ্ধি করা অনুচিত, কিন্তু যাদের আয় ১ মিলিয়ন ডালার, তাঁদের ট্যাক কোনোভাবেই ৩০% এর কম হওয়া উচিত নয়।

    জাতির তরুণ প্রজন্মের মধ্যে যোগ্যতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে তিনি প্রতিটি রাজ্য ভালো শিক্ষকদের ধরে রাখার জন্য অর্থ বরাদ্দের ঘোষণা দেন এবং বলেন, স্কুল কলেজগুলোকে বর্ধিত স্বাধীনতা দেয়া হবে। তিনি বলেন, ‘আমেরিকার প্রতিটি শিশুকে ১৮ বছর পর্যন্ত স্কুলে থাকা নিশ্চিত করতে হবে’।

    ওবামা মার্কিন উন্নয়নের লক্ষ্যে তাঁর নিজের দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও বিরোধীদল রিপাবলিকান পার্টির মধ্যে অধিকতর সহযোগিতার আহবান জানান।

    ইরান প্রসঙ্গে ওবামা বলেন, ইরানকে কোনোভাবেই পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী হতে দেয়া যাবে না। তিনি বলেন, ইরান অতীতের চেয়ে বর্তমানে সবচেয় বেশি বিচ্ছিন্ন। তিনি বলেন, পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির তৎপরতা পরিত্যাগ করলে ইরান গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠবে। 

    রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা মনে করেন, আসন্ন নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুনঃনির্বাচিত না হতে পারলে এটিই হবে ওবামার শেষ ইনিয়ন অফ স্টেইট ভাষণ। সুতরাং তিনি গতকালের ভাষণ তাঁর পুনঃনির্বাচিত লক্ষ্যেই প্রস্তুত করে উপস্থাপন করেন। সমালোচকদের মতে, ওবামা মুখে যে হৃদয়-কাড়া সংস্কারের কথা বলেছেন, বাস্তব কর্মে তার বাস্তবায়ন ততো সহজ হবে না। 

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন