• মিসরে 'নির্বিচার' গুলিঃ ১২০ নিহতের দাবি মুসলিম ব্রাদারহূডের, সরকার বলছে ২১
    egypt_bm_massacred_by_army.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৭ জুলাই ২০১৩, শনিবারঃ  গতরাতে মিসরে ক্ষমতাচ্যূত প্রেসিডেণ্ট মোহাম্মদ মুর্সির সমর্থকদের সমাবেশে নিরাপত্তারক্ষীদের 'নির্বিচার' গুলিতে অন্ততঃ ১২০ ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন। তবে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ ইব্রাহিম দাবি করেছেন মাত্র ২১ জন মারা গিয়েছেন তবে একজনও নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে নয়। [আরও ছবির জন্য এখানে ক্লিক করুন]

    ব্রিটেইনের দ্য গার্ডিয়ানের প্যাট্রিক কিংস্লের পাঠানো প্রাথমিক প্রতিবেদনে ১৩৬ জনের প্রাণ হারানোর কথা বলা হয়েছিলো।

    গত বুধবার সেনাপ্রধান ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল আল-সিসি জনগণকে 'সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে' তার প্রতি সমর্থনস্বরূপ শুক্রবার রাজপথে নামার আহবান জানান। দৃশ্যতঃ তার ডাকে সাড়া দিয়ে গতকাল কায়রোর তাহরির স্কোয়ারে হাজার হাজার সেনা-সমর্থক জড়ো হয়।

    অপরপক্ষে সেনা ক্যুদেতায় ক্ষমতাচ্যূত মুর্সির সমর্থকরাও ব্যাপক সংখ্যায় কয়েকমাইল দূরে অবস্থান নেয়। অনুরূপ পাল্টাপাল্টি অবস্থানে উত্তেজনাঘটিত সংঘর্ষে আরেক শহর আলেক্সান্দ্রিয়ায় অন্ততঃ ৫ জনের প্রাণহানি ঘটে।

    গভীর রাতে মুর্সি-সমর্থকদের কায়রোর রাজপথ থেকে হটিয়ে দিতে অভিযানে নামে পুলিস ও সেনাবাহিনী। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাব্বা আদাবিয়ায় সঙ্ঘটিত এ-অভিযানে স্বল্প সময়ের মধ্যে নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে কয়েকশো মানুষ হতাহত হয়।

    হোসনি মোবারকের পতনের পর থেকে এটিই মিসরে রাষ্ট্র কর্তৃক সঙ্ঘটিত নৃশংসতম গণহত্যা। ২০১১ সালে কায়রোর তাহরির স্কোয়ারে প্রবল গণ-অভ্যুত্থানে মোবারক ক্ষমতা ত্যাগ করেন। এর পর গত বছর জুনে অনুষ্ঠিত দেশটির ইতিহাসের সর্বপ্রথম নির্বাচনে পূর্বে থেকেই সুসংগঠিত তবে তাহরির স্কোয়ারের আন্দোলনে অংশ না-নেওয়া মুসলিম ব্রাদারহূড বিজয়ী হয়ে মোহাম্মদ মুর্সি প্রেসিডেণ্ট হন। এ-বছর তাহরির স্কোয়ারে পুনরায় সরকার-বিরোধী বিক্ষোভ শুরু হলে এ-মাসের ৩ তারিখে সময়সীমা বেঁধে দিয়ে প্রেসিডেণ্টকে ক্ষমতাচ্যূত করে বন্দী করে সেনাবাহিনী।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন