• রাশিয়ার উদ্বেগের মাঝে জর্ডানে যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ-ক্রীড়া 'অধীর সিংহ'
    us_patriot_missile.png

    ইউকেবেঙ্গলি ১০ জুন ২০১৩, সোমবারঃ সিরিয়া সীমান্ত থেকে ৭৫ মাইল দূরে জর্ডানের অভ্যন্তরে একটি বৃহৎ সামরিক অনুশীলন শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এতে অংশ নিচ্ছে ৪,৫০০ মার্কিন সেনা-সহ ১৯ দেশের প্রায় ৮,০০০ সৈন্য।

    'ঈগার লায়ন' বা অধীর সিংহ নামের এ-অনুশীলনে ব্যবহার করা হচ্ছে প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ও এফ-১৬ যুদ্ধবিমানের মতো আধুনিক সমর-যন্ত্র। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ১২ দিন ব্যাপী চলবে যুদ্ধানুশীলন। এর মাধ্যমে সম্ভাব্য রাসায়নিক যুদ্ধের জন্যও প্রশিক্ষণ দেয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে।

    প্রতিবেশী সিরিয়ায় দু'বছরেরও বেশি সময় ধরে সুন্নি ইসলামবাদী বিদ্রোহীরা দেশটির শিয়া প্রেসিডেণ্ট বাশার আল-আসাদের সরকার উৎখাত করতে যুদ্ধ করছে। প্রত্যক্ষভাবে তাদেরকে সহায়তা করছে কাতার ও সৌদি আরব ও তুরষ্কের মতো সুন্নি-প্রধান দেশগুলো। পশ্চাত থেকে তাদেরকে আবার আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সহায়তা করছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিশেষতঃ যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স এবং যুক্তরাষ্ট্র। অপর পক্ষে, সিরিয়াকে সহায়তা করছে ইরান ও লেবাননের শিয়া সংগঠন হিজবুল্লাহ। অভিযোগ রয়েছে যে, এদেরকে সমর্থন করছে রাশিয়া। 

    জর্ডানে যুক্তরাষ্ট্রের প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ও এফ-১৬ মোতায়েন করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে রাশিয়া। 'এ-বিষয়ে আমরা একাধিকবার মতামত দিয়েছি - বিষ্ফোরক একটি অঞ্চলে বিদেশী অস্ত্র-শস্ত্রের আমদানি করা হচ্ছে' - বলেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আলেক্সান্দ্র লুকাশেভিচ।

    এর আগে, অধীর সিংহ যুদ্ধানুশীলন শেষে মোতায়েনকৃত ক্ষেপণাস্ত্র ও জঙ্গী বিমান জর্ডানে থেকে প্রত্যাহার করা নাও হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছিলো মার্কিন সেনাবাহিনী। গত সপ্তায় মার্কিন সেণ্ট্র্যাল কম্যাণ্ডের একজন মুখপাত্র লে. কর্ণেল তি জি টেইলর বলেছিলেন, 'জর্ডানের সক্ষমতা বাড়াতে দেশটির সরকার অনুরোধ করলে এ-সকল অস্ত্রের কিছু-কিছু অনুশীলনের পরও রাখা হতে পারে'। কিছু-কিছু নয়, সদ্য-মোতায়েনকৃত সকল অস্ত্রই রেখে যাওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছে ইসরায়েলি সামরিক ম্যাগাজিন দেবকাফাইল।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন