• রাশিয়ার সীমান্তের কাছে ন্যাটোর বৃহৎ যুদ্ধ-ক্রীড়াঃ অংশ নেবে সব সদস্য রাষ্ট্র
    nato_excercise_near_russia.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২ নভেম্বর ২০১৩, শনিবারঃ আজ থেকে পোল্যাণ্ড ও লাটভিয়ায় ৭,০০০ সৈন্য-যোগে ৬ দিনের এক বৃহৎ যুদ্ধ-ক্রীড়া শুরু করেছে পশ্চিমা পরাশক্তিগুলোর সামরিক জোট ন্যাটো। সদস্য কোনো দেশে বিদেশী আগ্রাসনের মুখে কীভাবে ও কতো দ্রুত ন্যাটো পাল্টা ব্যবস্থা নিতে পারে তার অনুশীলন করা হবে এতে। খবর রয়টার্স ও রাশিয়া টুডে'র।

    আগামী ৭ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে 'স্টেডফাস্ট জ্যাজ়' নামের এ-অনুশীলন, যাতে অংশ নেবে সকল ন্যাটোর সদস্য-রাষ্ট্রের সম্মিলনে গঠিত বিমান, পদাতিক ও নৌবাহিনী এবং কমাণ্ডোর মতো বিশেষ বাহিনী।

    রাশিয়ার সীমান্তের কাছে প্রাক্তন সোভিয়েত দেশগুলোতে ন্যাটো যুদ্ধ-অনুশীলন এই প্রথম নয়। তবে সমাজতান্ত্রিক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর শীতলদ-যুদ্ধ সমাপ্ত হলে ন্যাটোর এতো বড়ো অনুশীলন খুব কমই হয়েছে। এ-ধরণের যুদ্ধ-ক্রীড়ায় একটি কল্পিত পরিস্থিতিতে যুদ্ধকালীন কর্মকাণ্ড অনুশীলন করা হয়।

    স্টেডফাস্ট জ্যাজ়ের কল্পিত পরিস্থিতিটি হচ্ছে সীমান্ত-মতানৈক্যকে কেন্দ্র করে নাম অনুল্লেখিত একটি দেশ এস্তোনিয়া আক্রমণ করেছে। এতে একটি সাইবার আক্রমণ অর্থাৎ ইণ্টারনেট ভিত্তিক আক্রমণও অন্তর্ভূক্ত থাকবে। ন্যাটোর কাজ হচ্ছে সে-সকল আক্রমণ প্রতিহত করে বিদেশী সেনাদেরকে পিছু হটতে বাধ্য করা। যদিও কল্পিত আগ্রাসী দেশের নামোল্লেখ করা হয়নি, তবে ভৌগলিক অবস্থান ও বিশ্বরাজনীতির প্রেক্ষাপটে এটি স্পষ্ট যে, তা হচ্ছে রাশিয়া।

    গত কয়েক বছরে রাশিয়া তার সামরিক বাজেট ব্যপকভাবে বাড়িয়ে চলেছে। প্রেসিডেণ্ট পুতিন এ-বছরই বলেছেন, "রাশিয়ার জন্য নির্ভরযোগ্য একটি সেনা-শক্তি  নিশ্চিত করা আমাদের রাষ্ট্রীয় নীতিতে অগ্রাধিকার পাচ্ছে"। আগামী ২০২০ সাল নাগাদ রাশিয়ার প্রতিরক্ষা বাজেট ৭০০ অর্বুদ (বিলিয়ন) মার্কিন ডলারে পৌঁছুবে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন