• লিবিয়ায় চাকুরী ও স্বাস্থ্যসেবার দাবীতে বিক্ষোভঃ তেল-টার্মিন্যাল বন্ধ
    libya_zueitina_oil_terminal_shutdown.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৭ ডিসেম্বর ২০১২, বৃহস্পতিবারঃ লিবিয়ায় বিক্ষোভকারীরা টানা চার দিনের মতো বন্ধ করে রেখেছে জুয়েইতিনা তেল রপ্তানীর সমুদ্র-টার্মিন্যাল। বিক্ষোভকারীদের ভাষ্য, চাকুরী ও স্বাস্থ্যসেবার দাবী আদায়ে তাঁরা তেল-বাণিজ্যে বাধা সৃষ্টির মাধ্যমে সরকারের উপরে চাপ প্রয়োগের চেষ্টা করছেন। খবর জানিয়েছে এএফপি, ইয়াহূ নিউজ ও প্রেস টিভি।

    গত বছর লিবীয় ও অ-লিবীয় আল-কায়েদা যোদ্ধাদের স্থল-সমরের সহায়তায় পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটো বিমান ও নৌ হামলার মাধ্যমে জনতান্ত্রিক লিবিয়ার প্রতিষ্ঠাতা মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে হত্যার মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত করে। সেই সাথে বন্ধ হয়ে যায় সকলের জন্য রাষ্ট্রীয় খাদ্য-বাসস্থান-শিক্ষা-চাকুরীর নিশ্চয়তা। যতোদিন রাষ্ট্র কোন তরুণকে চাকুরী দিতে না পারতো ততোদিন বেকার ভাতা প্রদান করতো।

    এখন পশ্চিমা ছাঁচে গড়ে তোলা নতুন রাষ্ট্র-ব্যবস্থায় এ-সকল সুবিধাদি না থাকায় বিক্ষুব্ধরা সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছে, তবে তা বিচ্ছিন্নভাবে। জুয়েইতিনা বন্দর অবরোধ কর্মসূচি এ-ধরণের বিক্ষোভ-কর্মকাণ্ডের অংশ।

    নতুন সরকারের উপ-তেলমন্ত্রী ওমর শাক্‌মাক তেল-বিক্ষোভের নিন্দা জানিয়েছেন। বিক্ষোভের বিস্তারিত বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, 'বিক্ষোভকারীরা চাকুরী ও স্বাস্থ্য-সেবার দাবীতে টার্মিন্যালে প্রবেশ করে ব্যবস্থাপককে এর কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য করে'।

    জুয়েইতিনা তেল টার্মিন্যালটি বেনগাজি থেকে ৯০ মাইল দক্ষিণে অবস্থিত। এ-বন্দর দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৬০,০০০ ব্যারেল অশোধিত পেট্রোলিয়াম পরিবাহিত হয়। লিবিয়ার ৩টি তেলক্ষেত্রের তেল এ-বন্দর দিয়ে রপ্তানি করা হয়, যা দেশটির মোট রপ্তানির প্রায় ২০ শতাংশ।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন