• লিবিয়ায় জনতার সশস্ত্র প্রস্তুতিঃ রাশিয়ায় আলোচনা আর আফ্রিকায় বিক্ষোভ
    Libyan-students-train.jpg

    ইউকেবেঙ্গলিঃ ৭ই জুলাই, ২০১১, বুধবার - রাশিয়ার সোচিতে চলমান রাশিয়া ও ন্যাটোর আলোচনায় লিবিয়া বিষয়ে এখনও কোনো মতৈক্য হয়নি। এ-আলোচনায় আরও অংশ নিচ্ছে আফ্রিকা-ইউনিয়নের প্রতিনিধি দক্ষিণ-আফ্রিকা। রাশিয়ার একটি পত্রিকা উচ্চস্তরের সরকারী সূত্রের বরাত দিয়ে দাবী করেছে, লিবিয়ার নেতা গাদ্দাফি 'শর্ত-সাপেক্ষে ক্ষমতা ছেড়ে যেতে' রাজী আছেন। কিন্তু লিবিয়ার সরকার তৎক্ষণাৎ এ-দাবী বাতিল করে দিয়েছে।

    আলোচনা শুরুর প্রাক্কালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দিমিত্রি মেদভেদেভ লিবিয়ার শান্তি-প্রতিষ্ঠার পথ খুঁজে বের করার সংকল্প ব্যক্ত করেছেন। ন্যাটোর প্রধান আন্দ্রেস ফগ রাসমুশেনের সাথে বৈঠকের সময় রুশ নেতা মেদভেদেভ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার নেতা জুমা উভয়েই লিবিয়ার উপর ন্যাটোর অব্যাহত বোমা-হামলার ব্যাপারে তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তাদের মতে ন্যাটোর অব্যাহত বোমা-বর্ষণ লিবিয়ায় শান্তি-প্রচেষ্টা ব্যাহত করছে।

    আফ্রিকা ইউনিয়ন বলেছে, লিবিয়ার সঙ্কট সমাধান করতে হলে আফ্রিকা-ইউনিয়নকে 'আরও রাজনৈতিক সুযোগ' দিতে হবে। তারা মনে করছে, আফ্রিকা-ইউনিয়নকে পাশ কাটিয়ে লিবিয়ায় কোনো শান্তি-প্রচেষ্টা এগুবে না। উল্লেখ্য, ৫৩ সদস্য-বিশিষ্ট এ-জোটটি লিবিয়ায় শান্তি প্রতিষ্ঠা-কল্পে তাদের নিজস্ব 'রৌড-ম্যাপ' নিয়ে সরকার ও বিদ্রোহী উভয় পক্ষের সাথেই আলাপ চালিয়ে যাচ্ছে।

    এদিকে, নিয়মিত সেনা-সদস্যদের বাইরেও লিবিয়ার জনতার মাঝে চলছে যুদ্ধের সাজ-সাজ রব। স্বদেশের নিরাপত্তা ও স্বাধীনতা রক্ষার্থে প্রায় ১০লক্ষ সাধারণ মানুষ এখন সশস্ত্র। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রত্যেকের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়েছে অন্তত একটি করে কালাশনিকভ রাইফেল ও ১২০ রাউন্ড গুলি।

    'ন্যাটো শীঘ্রই পদাতিক সেনা নিয়ে লিবিয়ায় স্থল-যুদ্ধে অবতীর্ণ হতে পারে' এমন আশঙ্কায় লিবিয়ার শহরে-শহরে চলছে গণ-যুদ্ধের প্রস্তুতি। উল্লেখ্য, লিবিয় ছাত্র-ছাত্রীরা উচ্চ-মাধ্যমিক পর্যায়েই প্রাথমিক যুদ্ধ-প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে, ফলে সেখানে সঙ্কট-মুহূর্তে অত্যন্ত দ্রুততার সাথে বিরাট গণ-ফৌজ গঠন করা সম্ভব বলে মনে করা হয়।

    অন্যদিকে লিবিয়ায় বোমা-বর্ষণ বন্ধ করার দাবীতে দক্ষিণ-আফ্রিকার শ্রমিকরা বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। দেশটির লৌহ-শ্রমিকদের জাতীয় ইউনিয়ন - সংক্ষেপে নুমসা - কয়েক হাজার শ্রমিক নিয়ে জৌহান্সবার্গে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সম্মুখে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে।

    খোদ যুক্তরাষ্ট্রেও চলছে বিক্ষোভের প্রস্তুতি। আগামী ৯ই জুলাই  লিবিয়ায় জারী থাকা বেআইনী বোমাবর্ষণ বন্ধ করার দাবীতে স্যান ফ্রান্সিস্কৌতে আয়োজন করা হয়েছে বিক্ষোভ সমাবেশ।

    যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক ওয়েবসাইট অফিশিয়ালঅয়্যার.কম-এর প্রধান সম্পাদক গ্রেইগ স্মিথ লিবিয়ায় হামলা বন্ধের দাবীতে নয় দিন যাবত অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি মনে করেন, লিবিয়াতে ন্যাটোর হামলা ন্যাটোর গঠন-চুক্তি ভঙ্গ করেছে। 'শান্তির জন্য উপবাস' নামে  আন্দোলন শুরু করেছেন স্মিথ।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন