• সমন্বিত বোমা বিস্ফোরণ ভারতের মুম্বাইয়েঃ কমপক্ষে ২১ হত ও ১৪১ আহত
    Mumbai-blast.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি, ১৩ জুলাই ২০১১, বুধবারঃ  ভারতে বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে খ্যাত মুম্বাইয়ে প্রায় একই সাথে তিনিটি পৃথক স্থানে তিনটি বোমা বিস্ফোরণে কমপক্ষে ২১ ব্যক্তি নিহত ও ১৪১ জন আহত হয়েছেন। বিস্ফোরণ তিনটি সমন্বিত বলে ধারণা করা হলেও এখনও পর্যন্ত কোনো ব্যক্তি বা সংগঠন এর দায়িত্ব স্বীকার করেনি।

    বুধবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬:৫৪ থেকে ৭:০৫ অর্থাৎ ১১ মিনিটের বাণিজ্যিক বিবেচনায় গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বোমাগুলো বিস্ফোরিত হয়।

    সবচেয় শক্তিশালী বিফোরণটি ঘটে ৬:৫৪-তে দক্ষিণ মুম্বাইয়ের জুয়েলারী ব্যবসার কেন্দ্রস্থল জাভেরি বাজারে। বিবিসি’র প্রকাশিত সংবাদের সাথে দেয়া ছবিতে দেখা যায়, বাংলায় সাইনবৌর্ড লেখা একটি জুয়েলারী টুলসের দোকানের সামনে বিস্ফোরণটি ঘটেছে।

    জাভেরি বাজার বিস্ফোরণের এক মিনিট পর ৬:৫৫-তে কেন্দ্রীয় মুম্বাই’র দাদার স্টেশনের অদূরে কবুতরখানায়। এখানে বোমাটি বিস্ফোরিত হয় হনুমান মন্দিরের কাছে।

    তৃতীয় বোমা-বিস্ফোরণ ঘটে আবার দক্ষিণ মুম্বায়েই অপেরা হাউস এলাকায়। অপেরা হাউসের পঞ্চবটী ডায়মন্ড চক বাণিজ্যস্থলে জেভি বিল্ডিং নামের একটি ভবনের সামনে বিস্ফোরণটি ঘটে।

    ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চিদাম্বরন বলেন, বোমা বিস্ফোরণের সময়-ক্রম ইঙ্গিত করছে এটি একটি সমন্বিত সন্ত্রাসী কাণ্ড।

    বিস্ফোরণের সময় ও স্থান নির্বাচন বিবেচনা করে বিশ্লেষকেরা বলছেন, ক্ষতি ও ভীতির মাত্রা সর্বোচ্চে অর্জনের লক্ষ্য থেকে এ-সন্ত্রাসী কাণ্ড ঘটানো হয়েছে।

    মহারষ্ট্রের চীফ মিনিস্টার পৃথ্বিরাজ চৌহান মুম্বাইর নাগরিকদের শান্ত থাকতে এবং কোনো ধরণের গুজবে বিশ্বাস না-করতে অনুরোধ করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রথম কাজ হচ্ছে, আহতদের প্রতি মনোযোগ দেয়া।’

    চৌহান জানান, প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।

    উল্লেখ্য, তিন বছর আগে, ২০০৮ সালে পাকিস্তান-ভিত্তিক লস্কর-ই-তৈয়বার ইসলামবাদী চরমপন্থীরা এই মুম্বাই নগরীতেই নজিরবিহীন আক্রমণ পরিচালনা করে বহু হতাহত ও ব্যাপক সন্ত্রাস সৃষ্টি করেছিলো।

    এ-আক্রমণ অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একমাত্র জীবিত অংশগ্রহণকারী ও বন্দী আজমল কাসাবের জন্মদিন ১৩ জুলাই’র সাথে মিলিয়ে সর্বশেষতম আক্রমণের দিন স্থির করা হয়েছে বলে গুজব রয়েছে। কিন্তু টাইমস অফ ইন্ডিয়া আদলতের নথিপত্র দেখে নিশ্চিত করেছে যে, কাসাবের জন্ম মাস জুলাই নয়, সেপ্টেম্বর।
    ভারতীয় পত্রপত্রিকাগুলো বুধবারের মুম্বাইয়ের ত্রি-বিস্ফোরণের জন্য ইসলামবাদী চরমপন্থীদের সন্দেহ করলেও, পাকিস্তানের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন উচ্চারিত হয়নি।

    এদিকে, পাকিস্তান দ্রুততার সাথে মুম্বাই’র ত্রি-বিস্ফোরণের নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি প্রকাশ করেছে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন