• সাঈদীর সাক্ষী সুখরঞ্জন বালি ভারতের কারাগারেঃ 'অপহরণ করেছিলো পুলিস'
    bd_sukharanjan_bali_02.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১৭ মে ২০১৩, শুক্রবারঃ  বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সঙ্ঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারার্থে গঠিত আদালতের সম্মুখ থেকে অপহৃত সাক্ষী সুখরঞ্জন বালি এ-মুহূর্তে রয়েছেন ভারতের কারাগারে। বাংলাদেশের পুলিস তাঁকে অপহরণ করে সীমান্তের-পথে ভারতে ঠেলে দিলে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে সে-দেশের কর্তৃপক্ষ তাঁকে কারাশাস্তি দিয়েছে।

    গত বছরের ৫ নভেম্বর ঢাকাস্থ আদালতটির কার্যালয়ের সামনে থেকে নিখোঁজ হন। উপরে উল্লিখিত মামলায় অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর নেতা দেলোয়ার হোসেইন সাঈদীর আইনজীবী মিজানুল ইসলাম সে-সময় দাবি করেছিলেন, তাঁর গাড়ীতে চড়ে আদালতে সাক্ষ্য দিতে আসার সময় শাদা-পোশাকধারী পুলিস বালিকে জোরপূর্বক গাড়ী থেকে নামিয়তে ধরে নিয়ে যায়; রাষ্ট্র-পক্ষ সে-অভিযোগ অস্বীকার করে। উল্লেখ্য, শুরুতে বালি রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষী থাকলেও পরবর্তীতে পক্ষ পরিবর্তন করে সাঈদীর পক্ষে সাক্ষ্য দেয়ার সিদ্ধান নেন বলে জানান বিবাদীপক্ষের আইনজীবীরা।

    সুখরঞ্জন বালির বিরুদ্ধে ভারতের থানায় দায়ের করা মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে যে, তিনি তাঁর অগ্রজ পরিতোষ বালির সাথে সাক্ষাত করতে সীমান্ত অতিক্রম করেছেন। তবে বাংলাদেশের ইংরেজি দৈনিক দ্য নিউ এজ জানিয়েছে, তাদের কাছে পাঠানো এক বিবৃতিতে বালি দাবি করেছেন, বাংলাদেশের পুলিস তাঁকে অপহরণের পর সীমান্ত-অতিক্রম করতে বাধ্য করে এবং বিএসএফ সেখানে তাঁকে গ্রেফতার করে।

    ভারতের কোলকাতা থেকে বিবিসি'র অমিতাভ ভট্টশালী জানান, অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশের দায়ে সুখরঞ্জন বালিতে ১০৫ দিনের কারাবাস ও ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সাজা শেষে তাঁকে বাংলাদেশের ফেরত পাঠানোরও কথা রয়েছে। তবে বালিকে বাংলাদেশের ফেরত পাঠালে তাঁর প্রাণ-নাশের আশঙ্কা রয়েছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। সংস্থাটি বালির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ও ভারত উভয় দেশকে আহবান করেছে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন