• সাবমেরিন কেবলে আড়ি পেতে সমগ্র ইণ্টারনেটে গোয়েন্দাগিরি করছে ব্রিটেইনঃ সাথে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র
    submarine_cables.png

    ইউকেবেঙ্গলি - ২২ জুন ২০১৩, শনিবারঃ সমগ্র পৃথিবীর উপর সঙ্গোপনে নজরদারী চালাচ্ছে ব্রিটেইনের গোয়েন্দারা। এ-কাজে তারা আড়ি পাতছে ইণ্টারনেটে তথ্য চলাচলের বৈশ্বিক মাধ্যম সাবমেরিন কেবলে। গোপনে সংগৃহীত তথ্য ব্যবহার করতে দেয়া হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রকেও। সিআইএ-র প্রাক্তন গোয়েন্দা এডওয়ার্ড স্নৌডেনের কাছ থেকে প্রাপ্ত গোপন দলিলের বরাত দিয়ে আজ দ্য গার্ডিয়ান ফাঁস করেছে এ-খবর।

    ইণ্টারনেটে তথ্য চলাচলের বিভিন্ন মাধ্যমের মধ্যে দ্রুতগতি ও স্বল্প ব্যয়ের কারণে সমুদ্রের নিচে স্থাপিত ফাইবার অপটিক তারই এখন সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। এ-ব্যবস্থা ব্যবহার করে প্রায় সমগ্র পৃথিবীই ইণ্টারনেটে সাথে সংযুক্ত রয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ইমেইল ও ওয়েবসাইট ছাড়াও ভ্রমণ করে টেলিফৌনের ডিজিটাল ও ফ্যাক্সের তথ্যও।

    গার্ডিয়ান জানিয়েছে,  প্রধানতঃ দু'টো উচ্চপ্রযুক্তির ব্যবস্থার মাধ্যমে ব্রিটেইনের সর্বোচ্চ গোপন গোয়েন্দা সংস্থা - গভর্ণমেণ্ট কমিউনিকেশন্স হেডকোয়ার্টার ( জিসিএইচকিউ) - এ-গোয়েন্দাগিরি করে থাকেঃ (১) ম্যাস্টারিং দ্য ইণ্টারনেট (এমটিআই) ও (২) গ্লৌবাল টেলিকম এক্সপ্লয়েটেশন (জিটিই)। এগুলোর মাধ্যমে  ট্রান্স-আটলাণ্টিক সাবমেরিন কেবলে ভ্রমণরত তথ্য গোপনে সংগ্রহ করে আলাদাভাবে জমা রাখা হয় অন্ততঃ ৩০ দিনের জন্য। তারপর বিপুল এ-তথ্য স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় বিশ্লেষণ করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যশনাল সিকিউরিটি এজেন্সি (এনএসএ) ব্যবহার করতে পারে জিসিএইচকিউ'র তথ্যাদি। আর এ-সকল কিছুই ঘটছে পৃথিবীবাসীর অগোচরে।

    জিসিএইচকিউ-এর সংগৃহীত তথ্যের মধ্যে রয়েছে টেলিফৌন কল, ইমেইল, ফেইসবুক ও টুইট্যার কর্মকাণ্ড,  ওয়েবসাইটে ভ্রমণ সংক্রান্ত তথ্য ইত্যাদি। গোপন দলিলের উদ্ধৃতি দিয়ে গার্ডিয়ান দাবি করেছে, গত বছর  জিসিএইচকিউ গড়ে প্রতিদিন ৬০০ নিযুত (মিলিয়ন) টেলিফৌন রেকর্ড হস্তগত করতো। প্রায় ২০০টি বৈশ্বিক ফাইবার অপটিক তারে আড়ি পেতে এ-কাণ্ডটি ঘটানো হতো। টেম্পৌরা নামের একটি অভিযানের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে জিসিএইচকিউ-এর এ-সকল কর্মকাণ্ড, যা চলছে প্রায় ১৮ মাস ধরে। গত বছর জিসিএইচকিউ'র ৩০০ ও এনএসএ'র ২৫০ জন গোয়েন্দা সংগৃহীত তথ্য বিশ্লেষনে নিয়োজিত ছিলেন।

    বিগত পাঁচ বছরে ধরে জিসিএইচকিউ একটু একটু করে বিভিন্ন ফাইবার অপটিক তারের নেটওয়ার্কে গোপন অভিগ্রাহক জুড়ে দিয়ে গড়ে তুলেছে এ-বিপুলাকার আড়িপাতা ব্যবস্থা। এ-কাজে 'গোপন চুক্তি' করা হয়েছে  নেটওয়ার্কগুলোর ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে। কোন প্রতিষ্ঠান এতে সম্মত না হলে  বাধ্য করা হয়েছে, অনেক ক্ষেত্রে মোটা টাকা দিয়ে, কখনও-কখনও লাইসেন্সে শর্ত জুড়ে দিয়ে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন