• সাভার কারখানা-ধসে মৃত সাড়ে তিনশো নিখোঁজ সহস্রাধিকঃ শ্রমিকদের বিক্ষোভ অব্যাহত, হরতালের ডাক
    bangladesh_garments_collapse_apr13.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৭ এপ্রিল ২০১৩, শনিবারঃ গত ২৪ তারিখে বাংলাদেশের সাভারে সঙ্ঘটিত পোশাক-কারখানা-ধসের ঘটনায় এ-পর্যন্ত ৩৪৬-ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।  এখনও নিঁখোজ রয়েছেন এক হাজারেরও বেশি শ্রমিক। দেশটির বিভিন্নস্থানে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা পুলিসের বাধার মুখেও প্রতিবাদ জানিয়ে চলেছেন। আগামী ২ মে সারাদেশে হরতাল ডেকেছে বামপন্থী দল ও জোটগুলো। 

    স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক, ফায়ার ব্রিগেইড ও সেনাবাহিনীর যৌথ প্রচেষ্ঠা স্বত্ত্বেও উদ্ধারকাজ চলছে ধীর গতিতে। ঘটনার ৭২ ঘণ্টা পরও জীবিত মানুষকে পাওয়া গিয়েছে ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবনটিতে, তবে যারা এখনও আটকা পড়ে রয়েছেন, প্রচণ্ড গরমে পানির অভাবে তাদের বাঁচার আশা ফুরিয়ে আসছে দ্রুত। স্বেচ্ছাসেবকরা গণচাঁদা তুলে জীবনরক্ষাকারী অক্সিজেন ক্যান, পানি, শুকনো খাবার ও উদ্ধার-সরঞ্জাম সংগ্রহ করছেন। অভিযোগ উঠেছে সরকারী উদ্ধার তৎপরতায় গাফিলতি। মাত্র একটি ভবনে দূর্ঘটনা সামলাতে কেনো সাধারণ মানুষকে চাঁদা তুলতে হবে, এমন প্রশ্নও উঠেছে বিভিন্ন মহল থেকে। 

    আজ ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আগামী ২ মে দেশব্যাপী হরতালের ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশের বামপন্থী জোট সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। ভিন্ন একটি সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের অন্য একটি বাম-জোট গণতান্ত্রিক বাম মোর্চাও একই দিনে হরতালের ঘোষণা দিয়েছে। তবে শ্রমিকদের ৮টি সংগঠন ২৮ তারিখে সকল পোশাক কারখানায় ধর্মঘট ও পোশাক ব্যবসায়ীদের সমিতি বিজিএমইএ-এর কেন্দ্রীয় ভবন ঘেরাওয়ের ডাক দিয়েছে। ঢাকা, গাজীপুর, নারায়নগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, চট্টগ্রাম ইত্যাদি স্থানে বিক্ষোভ করেছে পোশাক-শ্রমিকরা। 

     

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন