• সিরিয়ায় জিহাদে বাঙালী কিশোরীঃ বাড়ী ফিরতে চাওয়া খাদিজা 'মারা গিয়েছে'
    khadiza_sultana_bethnal_green.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ১১ অগাষ্ট ২০১৬, বৃহস্পতিবারঃ গত বছর পূর্ব লণ্ডন থেকে সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়া দুই বাঙালী কিশোরীর মধ্যে একজন প্রাণ হারিয়েছে বলে আজ খবর প্রচার করেছে আইটিভি। তার সাথী অন্য বাঙালী কিশোরীটি এখনও সিরিয়ার রাকা শহরে অবস্থান করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

    ইসলামবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন দায়েশে যোগ দিতে গত বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে বেথনাল গ্রীন থেকে তিন কিশোরী পালিয়ে যায় সিরিয়ায়। তাদের মধ্যে দু'জন ছিলো বাঙালী - ১৬ বছর বয়সী খাদিজা সুলতানা ও ১৫ বছর বয়সী শামীমা বেগম।

    তবে, কিছুদিন সিরিয়ায় বসবাসের পর মোহভঙ্গ ঘটে খাদিজার। বাড়ী ফিরতে চেয়ে যোগাযোগ করে তার শোকগ্রস্থ পরিবারের সঙ্গে। যুদ্ধের ময়দান থেকে তাকে উদ্ধারে এক পরিকল্পনা করে সকলে মিলে। একটি ট্যাক্সি ক্যাবে লুকিয়ে সিরিয়ার আবাস ত্যাগ করবে খাদিজা, তারপর পৌছুঁবে আগে থেকে ঠিক করে রাখা একটি নিরাপদ বাড়ীতে। সেখান থেকে তুরষ্ক হয়ে ফিরে আসবে ব্রিটেইনে। এ-সকল কিছুর আয়োজন করতে তার পরিবারের সদস্যরা তুরষ্কে ভ্রমণও করেছিলেন।

    খাদিজার সাথে তার বড়ো বোন হালিমার টেলিফৌনে আলাপ ভিডিওতে ধারণ করেন আইটিভির সাংবাদিক। সেখানে খাদিজা বলছে, "আমার ভালো লাগছে না, ভয় করছে"। ভীত খাদিজা তার বোনকে বলছে, "আমি আর কখনও ফিরতে পারবো না"। সেখানে যে জিহাদীকে সে বিয়ে করেছিলো সে আগেই মারা গিয়েছিলো বলে জানিয়েছে আইটিভি।

    কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি খাদিজার। জিহাদীদের হাত থেকে পালানোর আগেই তাদের উদ্দেশ্যে ফেলা বোমার আঘাতে ধ্বংস হয়ে যায় যে বাড়িতে খাদিজা অবস্থান করছিলো সেটি। রাকা থেকে তার পরবারের কাছে পাঠানো হয় মৃত্যুর সংবাদ। যদিও এখনও পর্যন্ত এ-সংবাদ সত্য বলেই বিশ্বাস করা হচ্ছে, তবে জিহাদীদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় ঘটা ঘটনাটির পূর্ণাঙ্গ বিবরণ নিশ্চিতভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন