• সিরিয়া-গৃহযুদ্ধে প্রাণঘাতি রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারঃ সরকার ও বিদ্রোহীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ
    syria_gas_attack_report.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ২৪ অগাস্ট ২০১৩, শনিবারঃ সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে গত ২১ অগাস্ট ও গতকাল ২৩ অগাস্ট বিষাক্ত গ্যাসের ব্যবহারে প্রায় এক হাজার প্রাণহানির সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এ-ঘটনায় সরকার ও বিদ্রোহী-পক্ষ একে অপরকে দোষ দিচ্ছে। বিদ্রোহীদের সমর্থক ইউরোপীয় শক্তিগুলো বলছে সরকার দায়ী, আর দৃশ্যতঃ সরকারের পক্ষাবলম্বনকারী রাশিয়া বলছে, বিদ্রোহীরা ঘটিয়েছে এ-কাণ্ড।

    শিয়া সম্প্রদায়ের অন্তর্ভূক্ত প্রেসিডেণ্ট বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধে প্রায় ৩০ মাস আগে অস্ত্র ধারণ করে চরমপন্থী সুন্নি ইসলামবাদীরা। তাদের সাথে রয়েছে আল-কায়েদা-সহ একাধিক ওয়াহাবী ও সালাফি সশস্ত্র জঙ্গী সংগঠন। অর্থ, অস্ত্র, যোগাযোগ-যন্ত্র ও সমর্থন দিয়ে এদেরকে সাহায্য করছে সৌদি আরব, কাতার ও তুরষ্কের মতো আঞ্চলিক রাষ্ট্র ও ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাজ্যের মতো পশ্চিমা শক্তিগুলো। বিপরীতে সিরিয়ার অখণ্ডতা ও স্থিতিশীলতা রক্ষার কথা বলে আল-আসাদকে সমর্থন করছে রাশিয়া।

    ২১ অগাস্ট রাজধানী দামেস্কের অদূরে বিদ্রোহী অধ্যুষিত গৌতা এলাকায় একটি রাসায়নিক বোমার বিষ্ফোরণ ঘটে। আসাদ-বিরোধী বলে পরিচিত সংবাদমাধ্যমগুলো দ্রুত এর জন্য সরকারকে দায়ী করে। তবে সরকারপক্ষ দাবি করেছে, এ-ঘটনায় তাদের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। এদিনই রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলে, পুর্বে বিদ্রোহীর দ্বারা ব্যবহৃত হাতে তৈরি একটি বোমার বিষ্ফোরণে অজ্ঞাত একটি গ্যাস ছড়িয়ে পড়ে।

    গৌতায় বিষাক্ত গ্যাস আক্রমণের মাত্র তিনদিন আগে জাতিসঙ্ঘের রাসায়নিক অস্ত্র বিষেশজ্ঞ দল সিরিয়ায় পৌঁছায়। তবে বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে থাকে ঐ এলাকায় তারা এখনও যেতে পারেননি বলে জানিয়েছে সংবাদ-মাধ্যমগুলো ।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন