• হামিদ কারজাইর দিল্লি সফরঃ ভারত-আফগান ‘স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ এ্যাগ্রীমেন্ট’ সাক্ষরিত
    Karzai-Singh-sign-agreement.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - ৫ অক্টোবর ২০১১, বুধবারঃ  আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই গতকাল মঙ্গলবার দু-দিনের ভারত-সফরে গিয়ে রাজধানী দিল্লিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সাথে নিরাপত্তা, নির্মাণ, বাণিজ্য ও শিক্ষা-সংস্কৃতি বিষয়ক এই প্রথম বারের মতো উচ্চ-পর্যায়ের এক ‘স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ এ্যাগ্রীমেন্ট’ সাক্ষর করেন। দীর্ঘদিনের পরিকল্পিত এ-চুক্তিটি এমনই এক সময় সাক্ষরিত হলো, যখন মাত্র একদিন আগে প্রেসিডেন্টা কারজাই তাঁর দেশে সন্ত্রাসী কাণ্ডের জন্য ভারতের জন্ম-প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে দায়ী করেন।

    প্রেসিডেন্ট কারজাই দিল্লিতে দেয়া তাঁর ভাষণে পাকিস্তানের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, ‘রাষ্ট্রীয় নীতির কৌশল হিসেবে আমাদের দেশের অসামরিক ও নিরাপরাধ মানুষের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদকে ব্যবহার করার ফলে এ-অঞ্চল যে-বিপদের সম্মুখীন হয়েছে, আমরা তা শনাক্ত করতে পেরেছি।’

    তার আগে, গত সোমবার কাবুলে দেয়া এক-টেলিভিশিত ভাষণে প্রেসিডেন্ট কারজাই পাকিস্তানকে ‘ডবল-গেইম’ খেলার অভিযোগ করে দাবী করেন যে, তালেবানের সাথে তাঁর শান্তি প্রচেষ্টার দূত ও প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বুরহানুদ্দিন রাব্বানিকে গত মাসে আত্মঘাতী বোমায় হত্যা করার পেছনে পাকিস্তানের হাত রয়েছে।

    ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং প্রেসিডেন্ট কারজাইকে অত্যন্ত কঠিন সময়ে মহৎ সাহস নিয়ে দাঁড়াতে পারার জন্য প্রশংসা করেন এবং  আফগানিস্তানের প্রতি তার সমর্থন জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের সাধ্যের মধ্যে যা আছে তার সব কিছু দিয়ে আমরা আফগানিস্তানকে সাহায্য করব।’ তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে আন্তার্জাতিক নিরাপত্তা বাহিনী প্রত্যাহৃত হবার পর নিজের শাসন ও নিরাপত্তার দায়িত্ব গ্রহণে আফগানিস্তানের মানুষের পাশে ভারত দাঁড়াবে।‘ মনমোহন সিং বলেন, ‘আফগানিস্তানের সাথে ভারতের সহযোগিতা হচ্ছে একটা খোলা বই। সুদিনে ও দুর্দিনে আমরা একত্রে থেকে কাজ করেছি।’

    ভারত-আফগান চুক্তিতে আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা সবলতর করার উদ্দেশ্যে আলোচনার জন্য দু-দেশের স্ব-স্ব জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের নেতৃত্বাধীনে কৌশল সংলাপ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে পারস্পরিক সম্মতি সাক্ষরিত হয়।

    ভারতীয় সংবাদ-মাধ্যমে ঐতিহাসিক বলে দাবী করা এ-ই চুক্তিটির গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলোর মধ্যে রয়েছে, আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর প্রশিক্ষণ, সমর-সজ্জা ও সক্ষমতা বৃদ্ধি,  রেলপথ ও সড়ক-সহ অবকাঠামো নির্মাণ, খনিজ সম্পদ আহরণে ভারতীয় সাহায্য এবং শিক্ষা-সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে পারস্পরিক বিনিময়ের প্রতিশ্রুতি।

    এদিকে, লন্ডন থেকে প্রকাশিত ফাইন্যাশিয়াল টাইমস এ-চুক্তির ‘যা সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ তা হচ্ছে বাণিজ্য’ মন্তব্য করে সেখানে ভারতীয় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন স্টীল অথোরিটী অফ ইন্ডিয়ার নেতৃত্বাধীন কনসোর্টিয়ামের ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের বিনিয়োগের সম্ভাবনার ইঙ্গিত দেয়।

    তবে, আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর ভারতীয় প্রশিক্ষণের বিষয়টি পাকিস্তানের জন্য অসুখকর হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন