• হুতি নিয়ন্ত্রিত ইয়েমেনী সংসদে অধিবেশন বসলো দু'বছর পরঃ সৌদি বিমানহামলায় ১৯ নিহত
    yemen_parliament_convens_aug2016.jpg

    ইউকেবেঙ্গলি - লণ্ডন, ১৩ অগাষ্ট ২০১৬, শনিবারঃ প্রায় দু'বছর পর আজ যুদ্ধ-বিধ্বস্ত ইয়েমেনে সংসদীয় অধিবেশবন বসেছিলো। এতে অংশ নেয় ৯১ জন সাংসদ ও ৩০১ সদস্য বিশিষ্ট ন্যাশনাল এ্যাম্বলি। একই দিনে দেশটির উপর সৌদি যুদ্ধবিমান উপুর্যুপুরি বোমাবর্ষণ করেছে, যাতে শিশু-সহ অন্ততঃ ১৯ জন নিহত হয়েছে।

    গত বছর ফেব্রুয়ারীতে ইয়েমেনের সরকার-বিরোধী হুতি বিদ্রোহীরা রাজধানী সানার নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। তৎকালীন প্রেসিডেণ্ট আবু মনসুর হাদির সরকার সমূদ্রতীরবর্তী এডেন শহরে আশ্রয় নিয়ে সাময়িকভাবে সেখানেই রাজধানী স্থাপন করেন। তবে প্রাক্তন প্রেসিডেণ্ট আবু সালেহ্‌'র সমর্থক কিছু সেনা-ইউনিট হুতিদের সাথে যোগ দিলে তাদের যৌথ আক্রমণের এডেন থেকে পালিয়ে সৌদি আরবে আশ্রয় নেন প্রেসিডেণ্ট হাদি। তাঁর অনুরোধে সৌদি আরব ২০১৫ সাল থেকে বিমান হামলা চালিয়ে আসছে হুতদের ওপর।

    আজকের সংসদ অধিবেশনকে 'সংবধানের লঙ্ঘন' ও 'শাস্তিযোগ্য অপরাধ' বলে উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন প্রেসিডেণ্ট হাদি। তিনি বলেন, "এ-সভায় যা-ই [আলোচিত] হোক না কেনো তার কোনো আইনী ভিত্তি নেই"। অপরদিকে সংসদ-প্রধান ইয়েহিয়া আল-রায়ি দেশের বাইরে অবস্থানরত সকল সাংসদকে ফিরে আসার অনুরোধ করেছেন। উল্লেখ্য, চলমান গৃহযুদ্ধের মধ্যে অনেক সাংসদই দেশ ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছেন।

    জাতিসঙ্ঘ চেষ্টা করছে ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধের মীমাংসা করতে। সংস্থাটি এখনও সৌদি-প্রবাসী হাদিকেই বৈধ রাষ্ট্রপতি মনে করে।

    এদিকে, সৌদি বোমাবর্ষণে নিহতদের অন্ততঃ ১০ জনেরই বয়েস ১৫ বছরের নীচে। আন্তর্জাতিক ত্রান সংস্থা ডক্টর্স্‌ উইদাউট বর্ডার্স্‌ এক ট্যুইটার বার্তায় নিশ্চিত করেছ এ-তথ্য।

    ইমেয়েনে সৌদি সামরিক কর্মকাণ্ডের মুখপাত্র মেজর জেনারেল আহমেদ আসেরি বলেছেন, "বিস্তারিতের দিকে অতো মনোযোগ দেবেন না। এখানে যুদ্ধ হচ্ছে, আর যুদ্ধে ভুলভাল হতে পারে"। অবশ্য তিনি বলেছেন যে, আজকের বিমান হামলা ও এতে নিহতদের ব্যাপারে তার নির্দিষ্ট কোনো মন্তব্য নেই।

আপনার মন্তব্য

এই ঘরে যা লিখবেন তা গোপন রাখা হবে।
আপনি নিবন্ধিত সদস্য হলে আপনার ব্যবহারকারী পাতায় গিয়ে এই সেটিং বদল করতে পারবেন