সংবেদন

হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্যঃ মুক্তিযুদ্ধের অচেতনা

মাসুদ রানা

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রকৃত অর্থে সেক্যুলার ছিলো কি-না সে-বিষয়ে বিতর্ক রয়েছে। কারণ, মুক্তিযুদ্ধের অন্তে সংবিধানে এলেও, প্রস্তুতিতে ও চলন্তিতে সেক্যুলারিজম তো দূরের কথা, ধর্মনিরপেক্ষতার কথাও উচ্চারিত হয়নি।

যে ৬-দফা দাবীকে মুক্তির সনদ বিবেচনা করা হয়, সেখানে ধর্মনিরপেক্ষতা নেই; যে ১১-দফাকে প্রগতির পরাকাষ্ঠা মানা হয়, সেখানে নেই; যে স্বাধীনতার ইশতেহারকে মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা মনে করা হয়, সেখানেও নেই। ধর্মনিরপেক্ষতা তাহলে হঠাৎ করে সংবিধানে এলো কীভাবে? ...»

আমি ভাষা খুঁজে পাই

মতিন সরকার

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ছাত্রলীগ-পুলিশ-প্রশাসনের ত্রিমুখী বর্বরতায় অনেকে ধিক্কার জানিয়েছেন; আবার অনেকে বলছেন তাঁরা ধিক্কার জানাবার ভাষাও হারিয়ে ফেলেছেন। মানুষ কেনো ভাষা পায় আর কেনোই বা কোনো-কোনো বিশেষ পরিস্থিতিতে তা হারায়, তার ত্বাত্ত্বিক আলোচনা হাজির করে কাউকে মূর্খ বা জ্ঞানী প্রতিপন্ন করার কোনো উদ্দেশ্য আমার নেই। তবে ভাষা যেহেতু ভাবের বাহন তথা ভাবাদর্শেরও বাহন, তাই নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে নির্দিষ্ট ভাষাটা খুঁজে পাওয়া জরুরী মনে করি। ...»

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ঃ জাগো বাহে, কোণ্‌ঠে সবায়!

মাসুদ রানা

আধুনিক বাঙালী জাতির গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস গড়েছেন এর বিদ্যার্থীরা। অখণ্ড বাংলায় ঊনিশ শতকের রেনেসাঁ বা নবজাগরণ থেকে শুরু করে বিভাগোত্তর পূর্ব-বাংলায় ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত বাঙালীর প্রায় সমস্ত ইতিহাস বিদ্যার্থীদের তৈরি। বাঙালী বিদ্যার্থীদের মতো এমন ইতিহাস-স্রষ্টা বিদ্যার্থীর পৃথিবীতে খুব কমই দেখা যায়। ...»

ব্লেয়ারের শিক্ষা-নিরাপত্তা তত্ত্ব ও আমার উদ্বেগ

মাসুদ রানা

গত শনিবারের অবজার্ভারে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার একটি আর্টিকেল লিখেছেন পৃথিবীতে আসন্ন যুদ্ধের চরিত্র কী হবে তার ভবিষ্যতবাণী করে। আর্টিকেলের শিরোনাম “রিলিজিয়াস ডিফারেন্সেস, নট আইডিওলজি, উইল ফিউয়েল দিস সেঞ্চুরিস এপিক ব্যাটেলস”।

ব্লেয়ার প্রথমে উপাত্ত দিয়ে প্রমাণ করতে চাইলেন সিরিয়া থেকে নাইজেরিয়া এবং ফিলিপাইন্স থেকে পাকিস্তান পর্যন্ত দেশে-দেশ চলছে ধর্মীয় চরমপন্থী সহিংসতা। তাঁর মতে, এ-সহিংসতা চলছে ধর্মের বিকৃতি ও ভ্রান্ত দৃষ্টিভঙ্গি ধারণ করে। ...»

অসাম্প্রদায়িক বুদ্ধিজীবীঃ নীরব নৃশংসতায়

মাসুদ রানা

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতার প্রধানতঃ দু’টি টেম্পোরাল এ্যাপিয়ারেন্স বা সময়গত আবির্ভাব আছে। এদের একটি প্রি-ইলেকেশন বা নির্বাচনপূর্ব এবং অন্যটি পৌষ্ট-ইলেকশন বা নির্বাচনোত্তর। সাম্প্রদায়িকতার এ্যাণ্টি-থিসিস হিসেবে যে-অসাম্প্রদায়িকতার কথা বলা হয়, তারও আবির্ভাব ঘটে নির্বাচনপূর্ব ও নির্বাচনোত্তর কালে। ...»