সংবেদন

ভারত-মার্কিন দ্বন্দ্ব ও বাংলাদেশ

মাসুদ রানা

পৃথিবী একটি মহাযুদ্ধের প্রস্তুতি পর্বে প্রবেশ করেছে। কারণ, অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তিতে চীনের উত্থান ও রাশিয়ার পুনরুত্থান এবং বিশ্বব্যাপী এদের বর্ধিষ্ণু প্রভাব পৃথিবীতে পূর্বস্থিত দু'দশকের একমেরুতাকে চ্যালেইঞ্জ করেছে। বস্তুতঃ গত বছরের ১৪ই সেপ্টেম্বর থেকে এ-একমেরুতা কার্যতঃ ভেঙ্গে পড়েছে। আর, এর অনিবার্য পরিণতি হিসেবে বর্তমান ভূ-রাজনীতির শক্তি-সমীকরণ নতুনভাবে বিন্যস্ত হওয়ার প্রয়োজন দেখা দিয়েছে। ...»

ধিক! হে কর্ণ, ধিক!

মাসুদ রানা

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনী মহাভারতের হতভাগ্য-বীর কর্ণ। হস্তিনাপুরের সিংহাসন নিয়ে কৌরব ও পাণ্ডবদের মধ্যে সংঘটিত কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে তিনি ক্ষমতাসীন কৌরব-পক্ষে লড়েছিলেন।

কর্ণ ছিলেন বীরশ্রেষ্ঠ ও দাতাশ্রেষ্ঠ। কিন্তু রাজপুত্র দুর্যোধন ও দুঃশাসনেরা যখন প্রতিযোগী পাণ্ডবদেরকে পাশা খেলায় হারিয়ে তাঁদের স্ত্রী দৌপদীকে জিতে নিয়ে জনসম্মুখে লাঞ্ছিতা করেন, তখন নারীর অবমাননায় বীর কর্ণ নীরব ছিলেন। ...»

ইয়ং বেঙ্গলঃ আধুনিক ভারতবর্ষের প্রথম যুব-বিদ্রোহ ও আজকের প্রেক্ষিত

পিনাকী ভট্টাচার্য

উনিশ শতকের দ্বিতীয় থেকে তৃতীয় দশকে বাংলার পশ্চাৎপদ আর কুসংস্কারাচ্ছন্ন সমাজের পশ্চাৎপটে কলকাতা শহরে একদল তরুণ কিশোর বয়সের ছাত্র তৎকালীন সমাজের প্রচলিত ধারার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন। বাংলার বাস্তব সামাজিক পরিবেশে বিদ্রোহের প্রত্যক্ষ কোন উদ্দীপক ছিল না। কিন্তু পৃথিবীর একটা বিশেষ যুগ-সন্ধিক্ষণ ছিলো এ-বিদ্রোহের উদ্দীপনা। ঐতিহাসিক সে-সন্ধিক্ষণটি ছিলো সামন্ততন্ত্র থেকে পুঁজিতন্ত্রে উত্তরণের কাল। এই কালের অভ্যুদয় হয়েছিলো মুলতঃ জ্ঞানবিজ্ঞানের কয়েকটি কালোত্তীর্ণ কীর্তির সমাবেশে - বাংলার ভূখন্ড থেকে বহুদুরে, ইউ ...»

ইমরান খান নিয়ে একটি লেখা প্রসঙ্গে

মাসুদ রানা

কাদের মোল্লার ফাঁসির ঘটনায় পাকিস্তানের রাজনীতিক ইমরান খানের বিরুদ্ধ-অবস্থান প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক ও দৈনিক প্রথম আলোর জনপ্রিয় লেখক শান্তনু মজুমদারের একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছে। লেখার শিরোনাম “কে এই ইমরান খান?” ...»

শুধু ক্ষমা প্রার্থনা নয়, পাঠ্যপুস্তকেও উল্লেখ চাই

মাসুদ রানা

২৩শে মার্চ ১৯৪০ পাকিস্তান সৃষ্টির প্রস্তাবনা দিবস, আর ২৬শে মার্চ ১৯৭১ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দিবস। দু'টিই বাঙালীর কাজ। প্রথমটি আবুল কাশেম ফজলুল হকের এবং দ্বিতীয়টি শেখ মুজিবুর রহমানের বলে দাবী করা হয়। দু'জনেই বঙ্গসন্তান। পাকিস্তানে লাহোর প্রস্তাবের ব্যাপারে কোনো বিতর্কের সুযোগ নেই, কারণ এটি লিখিত। বাংলাদেশে স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে বিতর্ক আছে, কারণ এটি কথিত (কিছু মানুষ দাবী করেন যে, রেডিওতে ঘোষণা করেছেন মেজর জিয়াউর রহমান, তবে তিনিও ঘোষণাটা করেছিলেন শেখ মুজিবুর রহমানের নামেই)। ...»